মজার রান্না ডেস্ক: লাউ অনেক উপকারি এবং মজার একটি তরকারি। আর এ জন্যই বাউল বলেছিলেন মনে হয়, ও মোর লাউ বানাইলো মোরে বইরাগি। আসলে লাউ এর কোনো কিছুই ফেলনা নয়। লাউয়ের ভেতরের অংশ দিয়ে নানান পদের খাবার হয়। আবার লাউয়ের দানা, খোসা আর শাক দিয়েই তৈরি করতে পারেন বিভিন্ন পদের ব্যঞ্জন। আসুন দেখে নেই লাউ এর অসাধারণ তিন পদ। রেসিপি দিয়েছেন ফারাহ তানজিন সুবর্ণা।

লাউ দানা দিয়ে নারিকেল ভর্তা

উপকরণ:

লাউদানা আধা কাপ (একদম কচিও না আবার একদম বুড়াও না, এমন দানা নেবেন)।

নারিকেল আধা কাপ (একদম ঝুনা নারিকেল নয় বরং একটু নরম নেবেন।

পেঁয়াজ ১টি, মাঝারি আকারের (মোটা করে কাটা)।

রসুন ৩ কোয়া (মোটা করে কাটা)।

কাঁচামরিচ ৫/৬টি বা ঝাল অনুযায়ী।

লবণ স্বাদমতো।

ধনেপাতা অল্প।

সরিষা সামান্য।

তেল অল্প।

পদ্ধতি:

অল্প তেলে লাউদানা সামান্য লবণ দিয়ে ভাজতে হবে। আলাদা প্যানে তেল দিয়ে পেঁয়াজ, রসুন, কাঁচামরিচ, সরিষা দিয়ে ভেজে নারিকেল আর লবণ দিয়ে ভাজতে হবে।

নামানোর আগে ধনেপাতা দিয়ে অল্প নেড়ে নামিয়ে শিলপাটা বা মিক্সারে পিষে নিন। একটু যদি নরম হয়, ঘাবড়াবার কিছু নেই। চাইলে অল্প তেলে আবার একটু ভেজে নিতে পারেন।

রং সবুজ রাখার জন্য কাঁচামরিচ ব্যাবহার করা হয়। চাইলে শুকনামরিচ তেলে ভেজে ব্যবহার করতে পারেন।

চিংড়ি দিয়ে লাউশাক ভর্তা

উপকরণ:
লাউশাক ১ আঁটি।
খোসা ছাড়ানো ছোট চিংড়ি এককাপের তিনভাগের একভাগ।
পেঁয়াজ ১টি মাঝারি আকারের (মোটা করে কাটা)।


রসুন ৩ কোয়া (মোটা করে কাটা)।
কাঁচামরিচ ৭/৮টি বা স্বাদ অনুযায়ী।
লবণ স্বাদমতো।
তেল অল্প।

পদ্ধতি:
আঁশ আর ডাটা বাদ দিয়ে লাউশাক বেছে নিতে হবে। চিংড়ি মাছ লবণ দিয়ে মাখিয়ে রাখুন। পাতিলে বা প্যানে বেশ কিছুটা পানি দিয়ে তাতে অল্প লবণ দিয়ে ভালো করে ফুটিয়ে শাকগুলো ছেড়ে দিতে হবে।

মিনিট দুই তিনেক রেখেই গরম পানি থেকে উঠিয়ে ফেলুন। তারপর প্যানে তেল দিয়ে লবণ মাখানো চিংড়ি, পেঁয়াজ, রসুন, কাঁচামরিচ দিয়ে ভেজে তুলে রেখে, সেই তেলেই বেশি আঁচে শাক আর প্রয়োজন মতো লবণ দিয়ে ভাজা ভাজা করতে হবে যাতে পানি না থাকে।

এবার সব ভাজা উপকরণ একসঙ্গে মিশিয়ে শিলপাটা বা মিক্সারে পিষে নিলেই ভর্তা তৈরি।

আলু দিয়ে লাউখোসা ভাজি

উপকরণ:
লাউয়ের খোসা আধা কাপ (একদম মিহি করে কুচি করা)।
আলু ১ কাপ (লাউয়ের খোসার তুলনায় একটু মোটা করে কুচি করা)।
পেঁয়াজ ১টি ছোট আকারের (কুচি করা)।
কাঁচামরিচ ৩/৪ টা (ফালি করা)।


হলুদগুঁড়া সামান্য।
লবণ স্বাদ অনুযায়ী।
ধনেপাতা ১ টেবিল-চামচ।
তেল ২ টেবিল-চামচ।

পদ্ধতি:
প্যান ভালোমতো গরম করে তেল গরম করুন। পেঁয়াজ দিয়ে সোনালি করে ভেজে লাউয়ের খোসা, হলুদগুঁড়া আর লবণ দিন। নেড়ে ভালো করে মিশিয়ে ঢেকে দিতে হবে। পাঁচ থেকে সাত মিনিট পর আলু আর ফালি করা কাঁচামরিচ দিন। খুব হালকা হাতে নাড়তে হবে যাতে আলু ভেঙে না যায়।

ভাজা হয়ে গেলে নামানোর আগে ধনেপাতার কুচি ছড়িয়ে দিয়ে লবণ চেখে নিয়ে নামিয়ে নিতে হবে।

প্যান আর তেল ভালোমতো গরম করে না নিলে ভাজি লেগে যাবে, তা সে ননস্টিক প্যান-ই হোক আর অ্যালুমিনিয়াম কড়াই হোক।

লাউয়ের খোসার চেয়ে আলুর পরিমাণ সবসময়-ই একটু বেশি নিতে হবে, নয়ত একটু তেতো লাগতে পারে।