মজার রান্না ডেস্ক: আপনাদের জন্য আমাদের এখনকার আয়োজনে রয়েছে এ যাবৎ কালের মজার রান্নার ইতিহাসের সব থেকে বেশি রেসিপি সংযুক্ত একটি রেসিপিগুচ্ছ। আর এই রেসিপিগুচ্ছটি সাজানো হয়েছে মুখরোচক সব নাস্তার রেসিপি দিয়ে।  আমরা মনে করছি এই রেসিপিগুচ্ছ আপনার নাস্তার চিন্তাই শেষ করে দেবে। দেখে নিন নাস্তার ৩২টি নতুন রেসিপি।

শাহি হালিম

উপকরণ-১ :১. মাংস (হাড়সহ) ৩ কেজি,২. আদা বাটা ৩ টেবিল চামচ,৩. রসুন বাটা ২ টেবিল চামচ,৪. জিরা বাটা ২ চা-চামচ,৫. ধনিয়া গুঁড়া ২ টেবিল চামচ,৬. গোলমরিচ গুঁড়া ২ চা-চামচ,৭. জায়ফল-জয়ত্রি গুঁড়া আধা চা-চামচ,৮. গরম মসলার গুঁড়া ১ চা-চামচ,৯. হলুদ গুঁড়া ১ চা-চামচ,১০. মরিচ গুঁড়া ১ টেবিল চামচ,১১. দারুচিনি ৬ টুকরা,১২. এলাচ ৬টি,১৩. লবঙ্গ ৮টি,১৪. তেজপাতা ২টি,১৫. টকদই ১ কাপ,১৬. লবণ পরিমাণমতো,১৭. পেঁয়াজ কুচি ১ কাপ,১৮. টমেটো পিউরি আধা কাপ,. চিনি ১ চা-চামচ,২০. পেঁয়াজ বেরেস্তা ৪ টেবিল চামচ,২১. তেল ১ কাপ।প্রণালি :> হাড়সহ মাংস ছোটটুকরা করে গরম মসলার গুঁড়া, বেরেস্তা বাদে বাকি সমস্ত উপকরণ দিয়ে মেখে কিছুক্ষণ রাখতে হবে। পরিমাণমতো গরম পানি দিয়ে মাংস রান্না করতে হবে। মাংস সেদ্ধ হয়ে ঝোল কমে এলে বেরেস্তা ও গরম মসলার গুঁড়া দিয়ে নামাতে হবে।

উপকরণ-২ :১. পোলাওয়ের চাল ১ কাপ,২. মুগ ডাল ভাজা আধা কাপ,৩. মসুর ডাল আধা কাপ,৪. মটর ডাল আধা কাপ,


৫. মাষকলাই ডাল ১ কাপ,৬. ছোলার ডাল আধা কাপ,৭. গম (আধা ভাঙা) ১ কাপ,৮. পেঁয়াজ কুচি আধা কাপ,৯. রসুন কুচি ২ টেবিল চামচ,১০. আদা কুচি ২ টেবিল চামচ,১১. কাঁচা মরিচ ৮-১০টি,১২. হলুদ গুঁড়া ১ চা-চামচ,১৩. মরিচ গুঁড়া ১ চা-চামচ,১৪. লবণ স্বাদমতো,১৫. পুদিনাপাতা কুচি ৪ টেবিল চামচ।

প্রণালি :> গম ৫-৬ ঘণ্টা ভিজিয়ে রেখে চাল ও ডাল ধুয়ে সমস্ত উপকরণ একসঙ্গে পরিমাণমতো পানি দিয়ে ভালোভাবে সেদ্ধ করে ঘুটে নিয়ে মাংস ঢেলে দিয়ে মৃদু আঁচে রান্না করতে হবে।> পরিবেশনের সময় আদা কুচি, পেঁয়াজ বেরেস্তা, হালিমের মসলা, লেমনরাইন্ড, লেবুর রস, কাঁচা মরিচ কুচি, পুদিনাপাতা ও ধনিয়াপাতা কুচি দিয়ে পরিবেশন করতে হবে।

সবজি পেঁয়াজু

উপকরণ :১. মসুর ডাল আধা কাপ,২. মটর ডাল আধা কাপ,৩. পেঁয়াজ কুচি ১ কাপ,৪. গাজর কুচি ৩ টেবিল চামচ,৫. পাতাকপি কুচি আধা কাপ,৬. আলু কুচি ২ টেবিল চামচ,৭. মটরশুঁটি ৩ টেবিল চামচ,


৮. ধনিয়াপাতা কুচি ২ টেবিল চামচ,৯. কাঁচা মরিচ কুচি ১ টেবিল চামচ,১০. আদা বাটা আধা চা-চামচ,১১. রসুন বাটা আধা চা-চামচ,১২. মরিচ গুঁড়া ১ চা-চামচ,১৩. হলুদ গুঁড়া আধা চা-চামচ,১৪. বেসন ২ টেবিল চামচ,১৫. বেকিং পাউডার আধা চা-চামচ,১৬. লবণ পরিমাণমতো।

প্রণালি :> ডাল ৩-৪ ঘণ্টা ভিজিয়ে রেখে ধুয়ে পানি ঝরিয়ে বেটে সব উপকরণ দিয়ে মাখিয়ে গরম তেলে পেঁয়াজু মচমচে করে ভাজতে হবে।

পনির কাবলি চানা

উপকরণ :১. কাবলি চানা ২৫০ গ্রাম,২. ঢাকাই পনির ছোট করে কাটা ১ কাপ,৩. আদা বাটা ১ চা-চামচ,৪. রসুন বাটা ১ চা-চামচ,৫. জিরা বাটা আধা চা-চামচ,৬. পিঁয়াজ কুচি ১ কাপ,৭. কাঁচা মরিচ কুচি ১ টেবিল চামচ,৮. টমেটো ছোট করে কাটা আধা কাপ,


৯. ক্যাপসিকাম ছোট করে কাটা আধা কাপ,১০. লেবুর রস ১ টেবিল চামচ,১১. ধনিয়াপাতা কুচি ২ টেবিল চামচ,১২. পুদিনা পাতা ২ টেবিল চামচ,১৩. লবণ পরিমাণমতো,১৪. তেল ৪ টেবিল চামচ,১৫. চাট মসলা ২ চা-চামচ,১৬. হলুদ গুঁড়া আধা চা-চামচ।

প্রণালি :> কাবুলি চানা পাঁচ-ছয় ঘণ্টা ভিজিয়ে রেখে হলুদ, লবণ দিয়ে সেদ্ধ করে শুকিয়ে নিতে হবে। তেল গরম করে সমস্ত মসলা কষিয়ে কাঁচা মরিচ, পেঁয়াজ, টমেটো, ছোলা দিয়ে ভাজতে হবে। ক্যাপসিকাম, ধনিয়াপাতা, পনির দিয়ে কিছুক্ষণ নাড়াচাড়া করে লেবুর রস, পুদিনাপাতা দিয়ে নামাতে হবে।

বেগুনি

উপকরণ :১. ছোলার ডালের বেসন দেড় কাপ,২. পোলাওয়ের চালের গুঁড়া আধা কাপ,৩. মরিচ গুঁড়া ১ চা-চামচ,৪. হলুদ গুঁড়া আধা চা-চামচ,৫. বেকিং পাউডার ১ চা-চামচ,৬. রসুন বাটা আধা চা-চামচ,


৭. আদা বাটা আধা চা-চামচ,৮. লবণ পরিমাণমতো,৯. তেল ভাজার জন্য,১০. মাঝারি সাইজের বেগুন ২টি।

প্রণালি :> বেগুন পাতলা করে কেটে সামান্য লবণ মাখিয়ে রাখতে হবে। বেগুন ও তেল বাদে বাকি সমস্ত উপকরণ একঙ্গে মিলিয়ে পরিমাণমতো পানি দিয়ে থকথকে মিশ্রণ করে কিছুক্ষণ রাখতে হবে, বেগুন বেসনের ব্যাটারে ডুবিয়ে গরম ডুবোতেলে ভাজতে হবে।

** একইভাবে—পুঁইপাতা, মিষ্টিকুমড়া, শসা, আলু, কাঁচকলা, মিষ্টি কুমড়ার ফুল, বক ফুল, পেঁয়াজ, রসুন, কাঁচা মরিচ, চিংড়ি মাছ, বড় মাছের ফিলে, স্লাইস চিজ, মোজারেলা চিজ, ঢাকাই চিজ ইত্যাদি দিয়ে এভাবে মিশ্রণে ডুবিয়ে ভাজা যায়।

চিকেন ফ্লাওয়ার পট

উপকরণ :১. চিকেন কিমা ১ কাপ,২. পেঁয়াজ কিমা ১/২ কাপ,৩. রসুন কিমা ১ চা চামচ,৪. আদা কিমা ১ চা চামচ,৫. কাঁচামরিচ কুচি ২ চা চামচ,৬. চিজ গ্রেট ২ চা চামচ,
৭. গোলমরিচ গুঁড়া ১/২ চা চামচ,৮. মেয়োনিজ ২ চা চামচ,৯. তেল ২ টেবিল চামচ,১০. লবণ স্বাদমতো,১১. ক্যাপসিকাম কুচি (লাল, সবুজ) ১/২ কাপ,১২. ময়দা ১ কাপ,১৩. ডিম ১টি।

প্রণালি :> প্রথমে ময়দা, সামান্য লবণ ও ডিম, দুই চা চামচ তেল ও পরিমাণমতো পানি দিয়ে ময়দা মেখে ডো তৈরি করে নিন। এবার রুটির মতো বেলে নিন। বেলার পর হাত দিয়ে ছোট ছোট ফ্লাওয়ার পট বানিয়ে নিন। এখন কড়াইয়ে তেল গরম করে পটগুলো বাদামি করে ভেজে তুলে নিন। এবার মেয়োনিজ ছাড়া চিকেন কিমাসহ বাকি সব উপকরণ ভালো করে মেখে, কড়াইয়ে তেল গরম করে, ভালো করে কষিয়ে নিন। এবার মেয়োনিজ দিয়ে নেড়ে নামিয়ে নিন। এখন বানিয়ে রাখা ফ্লাওয়ার পটে কষানো কিমা পরিমাণমতো ভরে পরিবেশন করুন চিকেন ফ্লাওয়ার পট।

ফিশ চপ

উপকরণ :১. রুই মাছ ৫০০ গ্রাম, ২. পেঁয়াজ কুচি তিন টেবিল চামচ, ৩. ডিম দুটি, ৪. কাঁচামরিচ কুচি দু-তিনটি, ৫. গোলমরিচের গুঁড়া আধা চা চামচ, ৬. সেদ্ধ আলু দুটি,


৭. ধনিয়াপাতা কুচি দুই টেবিল চামচ, ৮. হলুদের গুঁড়া সামান্য, ৯. বিস্কুটের গুঁড়া এক কাপ, ১০. তেল পরিমাণমতো,১১. লবণ স্বাদমতো।

প্রণালি :> প্রথমে রুই মাছ ভালো করে ধুয়ে তিন থেকে চার মিনিট সেদ্ধ করুন। চাইলে মাছ তেলে ভেজেও নিতে পারেন। এবার মাছের কাঁটা বেছে ফেলুন এবং কাঁটাছাড়া মাছটি প্লেটে তুলে রাখুন। এবার একটি প্যানে তেল দিয়ে তাতে পেঁয়াজ কুচি দিয়ে ভাজতে থাকুন। বাদামি হয়ে এলে চুলা থেকে নামিয়ে একটি বাটিতে নিন। এর মধ্যে কাঁটা ছাড়ানো মাছ, সেদ্ধ আলু, ধনেপাতা কুচি, কাঁচামরিচ কুচি, হলুদের গুঁড়ো, গোলমরিচের গুঁড়ো ও লবণ একসঙ্গে ভালো করে মিশিয়ে নিন। এখন এই মিশ্রণ দিয়ে গোল গোল চপ তৈরি করুন। প্রথমে ডিমে ভিজিয়ে এরপর বিস্কুটের গুঁড়ো লাগিয়ে প্লেটে নিয়ে ১০ মিনিট ফ্রিজে রাখুন। প্যানে তেল গরম করে এর মধ্যে মাছের চপগুলো বাদামি করে ভেজে নিন। ব্যস, খুব সহজেই তৈরি হয়ে গেল ফিশ চপ।

মোজারেলা স্টিক

উপকরণ :মোজারেলা চিজ ৩০০ গ্রাম, ময়দা আধা কাপ, বেসন আধা কাপ,


গোলমরিচের গুঁড়া সামান্য, তেল এক কাপ, বিস্কুটের গুঁড়া আধা কাপ।

প্রণালি :> প্রথমে মোজারেলা চিজ চিকন করে কেটে নিন। এবার একটি বাটিতে ময়দা, গোলমরিচের গুঁড়া ও বেসন একসঙ্গে মিশিয়ে নিন। এর মধ্যে পানি দিয়ে ঘন মিশ্রণ তৈরি করুন।> এখন চিজগুলো ময়দার মিশ্রণে মেখে বিস্কুটের গুঁড়া লাগান। প্লেটে নিয়ে দুই থেকে তিন ঘণ্টা ফ্রিজে রেখে দিন। এর ফলে চিজ সহজে গলে যাবে না। তেল গরম করুন। ডুবো তেলে চিজ স্টিকগুলো ভাজতে থাকুন। বাদামি হয়ে গেলে প্লেটে তুলে সসের সঙ্গে গরম গরম পরিবেশন করুন মোজারেলা স্টিক।

পালং কাটলেট

উপকরণ :১. পালং শাক ২৫০ গ্রাম,২. বেসন ছয় টেবিল চামচ,৩. আদা কুচি আধা চা চামচ,৪. বুটের ডাল ৫০ গ্রাম,


৫. পেঁয়াজ কুচি দুটি,৬. কাঁচামরিচ কুচি দুটি,৭. চাট মসলা এক চা চামচ,৮. তেল ভাজার জন্য,৯. লবণ স্বাদমতো।

প্রণালি :> প্রথমে বুটের ডাল পানির মধ্যে এক ঘণ্টা ভিজিয়ে রাখুন। এবার প্রেসার কুকারে এক ঘণ্টা সেদ্ধ করে নিন। এখন একটি প্যানে তেলে দিয়ে তাতে বুটের ডাল ভেজে নিন। এরপর একটি বাটিতে ভাজা বুটের ডাল, কুচি করা পালং শাক, পেঁয়াজ কুচি, কাঁচামরিচ কুচি, বেসন, লবণ, চাট মসলা, আদা কুচি ও পরিমাণমতো পানি দিয়ে মিশ্রণ তৈরি করে নিন। এই মিশ্রণ হাতে নিয়ে ছোট ছোট কাটলেট তৈরি করুন। এবার প্যানে তেল দিয়ে বাদামি করে কাটলেট ভেজে নিন। টমেটো সসের সঙ্গে গরম গরম পরিবেশন করুন পালং শাকের মচমচে কাটলেট।

চিংড়ির কাবাব

উপকরণ :১. চিংড়ির কিমা এক কাপ,২. কাঁচামরিচ কুচি ১ টেবিল চামচ,৩. ধনিয়াপাতা কুচি ১ টেবিল চামচ,৪. পেঁয়াজ কুচি ২ টেবিল চামচ,৫. সিদ্ধ আলু পরিমাণমতো,


৬. কর্নফ্লাওয়ার পরিমাণমতো,৭. ডিম ২টি,৮. ব্রেডক্রাম পরিমাণমতো,৯. টমেটো সস পরিমাণমতো,১০. লবণ স্বাদমতো।

প্রণালি :> ডিম, ব্রেডক্রাম ও তেল বাদে সব উপকরণ একসঙ্গে মিশিয়ে নিতে হবে। এবার পছন্দমতো আকারে গড়ে ডিমে ডুবিয়ে ব্রেডক্রাম মেখে ডুবো তেলে বাদামি করে ভাজতে হবে।

চিজ চিকেন ফিঙ্গার

উপকরণ :১. মুরগির বুকের মাংস তিন টুকরা,২. ডিম দুটি,৩. দুধ আধা কাপ,৪. অলিভ অয়েল দুই টেবিল চামচ,


৫. ময়দা দুই টেবিল চামচ,৬. বিস্কিটের গুঁড়া এক কাপ,৭. চিজ কুচি আধা কাপ,৮. গোলমরিচের গুঁড়া সামান্য,৯. লবণ স্বাদমতো।

প্রণালি :> প্রথমে মুরগীর মাংস চিকন করে কেটে নিন। এবার একটি বাটিতে ডিম, অলিভ অয়েল, মুধ ও দুই টেবিল চামচ পানি একসঙ্গে ভালো করে মিশিয়ে নিন। এতে মুরগির মাংসের টুকরোগুলো দিয়ে ১০ থেকে ১৫ মিনিট রেখে দিন। অন্য একটি বাটিতে ময়দা লবণ, চিজ, গোলমরিচের গুঁড়া ও বিস্কিটের গুঁড়া একসঙ্গে মিশিয়ে নিন। এবার মেরিনেট করা মুরগির মাংসগুলোতে ময়দার মিশ্রণে লাগিয়ে একটি ট্রেতে তুলে রাখুন। এবার প্যানে তেল দিয়ে গরম করুন। এখন ডুবো তেলে মুরগির মাংসগুলো বাদামি করে ভেজে নিন। ভাজা হয়ে গেলে প্লেটে তুলে টমেটো সসের সঙ্গে গরম গরম পরিবেশন করুন মচমচে চিজ চিকেন ফিঙ্গার।

পনির সমুচা

উপকরণ :১. পনির কুচি ২৫০ গ্রাম,২. ময়দা দুই কাপ,৩. পেঁয়াজ কুচি একটি,৪. কাঁচামরিচ কুচি দুটি,


৫. মরিচের গুঁড়ো এক চা চামচ,৬. জিরা আধা চা চামচ,৭. লেবুর রস এক চা চামচ,৮. মাখন ৫০ গ্রাম,৯. তেল ভাজার জন্য,১০. লবণ স্বাদমতো।প্রস্তুতপ্রণালি :> প্রথমে একটি বাটিতে ময়দা, মাখন ও লবণ একসঙ্গে ভালো করে মিশিয়ে ডো তৈরি করে নিন। এবার প্যানে তেল গরম করে জিরা দিন। এখন এর মধ্যে পেঁয়াজ কুচি, কাঁচামরিচ কুচি, মরিচের গুঁড়া, লেবুর রস, লবণ ও পনির দিয়ে ভালো করে কষিয়ে চুলা থেকে নামিয়ে ঠান্ডা করুন। এবার ময়দার ডো দিয়ে রুটি বেলে সমুচার শেপে কেটে নিন। এর মধ্যে পনিরের মিশ্রণ দিয়ে সমুচা তৈরি করে নিন। প্যানে তেল গরম করুন। এখন ডুবো তেলে সমুচাগুলো ভেজে নিন। বাদামি হয়ে গেলে চুলা থেকে নামিয়ে টমেটো সসের সঙ্গে গরম গরম পরিবেশ করুন মচমচে পনির সমুচা।

শাহি ছোলা ভুনা

উপকরণ :১. ছোলা ২ কাপ, ২. আলু ১ টা কিউব করে কাটা , ৩. পেঁয়াজ কুচি ১/৪ কাপ , ৪. আদা বাটা ১ চা চামচ, ৫. রসুন বাটা আধা চা চামচ, ৬. জিরা বাটা আধা চা চামচ,


৭. ধনিয়া গুঁড়া ১ চা চামচ, ৮. হলুদ গুঁড়া আধা চা চামচ, ৯. মরিচ গুঁড়া ১ চা চামচ, ১০. কাঁচামরিচ ৫-৬টি, ১১. লবণ পরিমাণমতো, ১২. তেল ৩ টেবিল চামচ,১৩. তেজপাতা ২টি, ১৪. দারচিনি ২ টুকরা, ১৫. এলাচ ২টি, ১৬. আস্ত জিরা সামান্য।

প্রণালি :> ছোলা ৫-৬ ঘণ্টা ভিজিয়ে রেখে সেদ্ধ করতে হবে। তেল গরম করে আস্ত জিরা দিয়ে পেঁয়াজ কুচি বাদামী করে ভাজতে হবে। এরপর আলু এবং সব বাটা ও গুঁড়া মসলা কষিয়ে ছোলা দিয়ে ভুনতে হবে। এভাবে পর্যায়ক্রমে বাকি উপকরণ দিয়ে কষিয়ে অল্প পানি দিয়ে রান্না করতে হবে। ছোলার ওপর তেল এলে চুলার আঁচ কমাতে হবে। এর পর কাঁচা মরিচ দিয়ে নামিয়ে নিতে হবে।

স্টিম কাবাব

উপকরণ :১. মুরগি কিংবা খাসির কিমা ৪০০ গ্রাম,২. আদা বাটা এক টেবিল চামচ,৩. রসুন বাটা এক টেবিল চামচ,৪. পেঁয়াজ বাটা তিন টেবিল চামচ,৫. কাঁচামরিচ বাটা আধা টেবিল চামচ,৬. টক দই এক টেবিল চামচ,
৭. ধনিয়াপাতা কুচি আধা টেবিল চামচ,৮. জিরা গুঁড়া আধা চা চামচ,৯. মরিচের গুঁড়া এক চা চামচ,১০. গোলমরিচের গুঁড়া এক টেবিল চামচ,১১. পেঁয়াজ কুচি আধা কাপ,১২. দুধে ভেজানো পাউরুটি এক টুকরা,১৩. তেল তিন টেবিল চামচ,১৪. লবণ স্বাদমতো।

প্রণালি :> প্রথমে একটি ব্লেন্ডারে মাংসের কিমা, আদা বাটা, রসুন বাটা, পেঁয়াজ বাটা, পেঁয়াজ কুচি, টক দই, কাঁচামরিচ বাটা, মরিচের গুঁড়া, পাউরুটি ও জিরা গুঁড়া নিয়ে ভালো করে ব্লেন্ড করুন। বেশি পাতলা করে ব্লেন্ড করবেন না। আর পুরোপুরি মিহি করারও প্রয়োজন নেই। এবার একটি বাটিতে নিয়ে এর মধ্যে লবণ, ধনিয়াপাতা কুচি ও গোলমরিচের গুঁড়া দিয়ে ভালো করে মেশান। এখন কাবাবের মতো ছোট ছোট বল তৈরি করে নিন। এবার একটি প্যানে তেল দিয়ে কাবাবগুলো হালকা ভেজে নিন। এখন একটি স্টিম মেশিনে কাবাবগুলো নিয়ে অন্তত ১৫ মিনিট স্টিম দিন। ব্যস, খুব সহজেই তৈরি হয়ে গেলে স্টিম কাবাব।

মেক্সিকান চিমিচাঙ্গা

উপকরণ :১. টরটিলা ৫-৬টি (চাপাতিকে টরটিলা বলে),২. মুরগির বুকের মাংস (সিদ্ধ করা) ১ কেজি,৩. চিকেন স্টক ১ কাপ,৪. পোলাওয়ের চাল আধা কাপ,৫. চিলি অথবা টমেটো সস ১ কাপ,৬. পেঁয়াজকুচি আধা কাপ,


৭. রেড বিন্স (সিমের দানা) ১ কাপ,৮. অলিভ অয়েল ভাজার জন্যে যতটুকু লাগবে।

এছাড়াও ফিলিংয়েল জন্য আরও লাগবে :পনির, ক্যাপ্সিকাম, ব্ল্যাক অলিভ, ফ্রেশ কর্ন। এগুলো সব বাজারে পাবেন।

টপিংয়ের জন্য :সালসা মসলা, ক্রিম অথবা পনির।

প্রণালি :> রান্না করা বুকের মাংস হাত দিয়ে ছিঁড়ে ছিঁড়ে রাখুন। হাঁড়িতে চাল, চিকেন স্টক, সস ও পেঁয়াজকুচি মিশিয়ে চুলায় বসান। > ফুটে উঠলে আঁচ কমিয়ে ২০ মিনিট রান্না করুন অথবা চাল সিদ্ধ হওয়া পর্যন্ত রান্না করুন। > চাল সিদ্ধ হয়ে গেলে এতে মাংস মিশিয়ে নামিয়ে ঠাণ্ডা করে নিন। এবার একটি টরটিলা অথবা চাপাতির উপরে চামচ দিয়ে সমান করে চিকেনের মিশ্রণটা দিন। > চাইলে এই মিশ্রণের উপরে আরও দিতে পারেন রেড অথবা ব্ল্যাক বিন্স, চিজ, অলিভ ইত্যাদি। > এবার রুটি স্প্রিং রোলের মতো করে ভাঁজ করে নিন। এভাবে সবগুলো চিমিচাঙ্গা বানিয়ে নিন।> একটি ননস্টিক প্যানে তেল গরম করে, চিমিচাঙ্গাগুলো দুইপাশ সোনালি করে ভেজে নিন।> ওভেনেও ভাজা যেতে পারে।> গরম গরম পরিবেশন করুন সালসা, সস বা ক্রিম দিয়ে।

ইন্দোনেশিয়ান কোলাক

উপকরণ :মিষ্টি আলু ২ কাপ,আখের গুড় দেড় কাপ,লবণ আধা চা চামচ,


কোকোনাট মিল্ক ২ কাপ,পানি ৪ কাপ,আস্ত দারচিনি ২ইঞ্চি।

প্রণালি :> প্রথমে আখের গুড় ১ কাপ পানি দিয়ে ৭ থেকে ৯ মিনিট বয়েল করে সস বানাতে হবে। এবার কিউব করা মিষ্টি আলু বাকি কাপ পানির মধ্যে একটি প্যানে বয়েল করতে হবে। এরপর ১টি দারচিনি, কোকোনাট মিল্ক লবণ দিয়ে ঢাকনা দিয়ে ঢেকে দিতে হবে। আধা সেদ্ধ হলেই আখের গুড়ের সস পরিমাণমতো ঢেলে দিন। কিছুক্ষণ পর নামিয়ে ফেলুন।রোস্ট অ্যালমন্ড ফ্লেকস, দারচিনি অথবা যে কোন নাট দিয়ে পরিবেশন করুন।

কাঁঠালের কোলাক

উপকরণ :১. পাকা কলা ২০০ গ্রাম,২. পাকা কাঁঠালের কোয়া ১৫০ গ্রাম,৩. মিষ্টি আলু ১০০ গ্রাম,৪. নারকেলের দুধ তিন কাপ,


৫. তালের গুড় আধা কাপ,৬. মধু এক টেবিল চামচ,৭. তেজপাতা ২ টা,৮. আদার টুকরো এক ইঞ্চি,৯. পানি আধা লিটার।

প্ণালি :> প্রথমেই একটি পাত্রে করে চুলায় পানি গরম দিন। পানি ফুটতে শুরু করলে তাতে তেজপাতা, আদার টুকরো আর গুড় দিয়ে দিন। > কিছুক্ষণ পরে গুড় গুলে গেলে মিষ্টি আলু দিয়ে মিশ্রণটি আরও কিছুক্ষণ ফোটান। > মিনিট পনেরো পরে মিষ্টি আলু নরম হয়ে এলে কাঁঠাল আর কলার টুকরো দিন। পাঁচ মিনিট মতো ফুটিয়ে আঁচটা একেবারে কমিয়ে দিন। > এবার নারকেলের দুধ মেশান, মধু দিন। আরও মিনিট দশেক ফুটিয়ে গ্রেভি ঘন হয়ে এলে নামিয়ে ফেলুন।

তুর্কি পোগাকা

উপকরণ:ডো তৈরির জন্য:১. ১০০ গ্রাম মাখন২. ১/২ কাপ তেল৩. ২টি ডিম৪. ১/২ গ্লাস দুধ৫. ১ টেবিল চামচ বেকিং পাউডার৬. ১ চা চামচ লবণ৭.৪ কাপ ময়দাপুররের জন্য:১. ৩টি ছোট আলু সিদ্ধ২. ১টি পেঁয়াজ৩. তেল


৪. ১ চা চামচ লবণ৫. ১/২ চা চামচ গোল মরিচের গুঁড়ো৬. কালোজিরা৭. ডিমের কুসুম

প্রণালি :> একটি প্যানে তেল গরম করে এতে পেঁয়াজ কুচি দিয়ে দিন।> পেঁয়াজ নরম হয়ে এলে এতে সিদ্ধ আলু (ম্যাশ করা), লবণ, গোল মরিচের গুঁড়ো এবং লাল শুকনো মরিচের গুঁড়ো দিয়ে দিন।> কিছুক্ষণ চুলায় রেখে নামিয়ে ফেলুন।> আরেকটি পাত্রে মাখন, ডিম, দুধ, তেল, লবণ, ময়দা, বেকিং পাউডার একসাথে ভাল করে মিশিয়ে ডো তৈরি করে নিন।> ডোটি নরম না হওয়া পর্যন্ত ময়ান করুন।> এবার ডো থেকে ডিমের আকৃতির সমান লেচী করে এতে আলুর পুর দিয়ে পুরির মত তৈরি করে নিন।> একটি ছুড়ি দিয়ে চারপাশে কিছুটা পার্থক্য রেখে কাটুন। যেন দেখতে ফুল আকৃতির হয়। > ৮। এবার ওভেন ট্রেতে এই ফুলগুলো রাখুন তার উপর ডিমের কুসুম ব্রাশ করে দিন। তারউপর কিছু পরিমাণ কালোজিরা ছিটিয়ে দিন।> এরপর ২০০ ডিগ্রী সেলসিয়াস (৪০০ ফারেনহাইট) প্রি হিট করা ওভেনে বেক করতে দিন। > ২৫ মিনিট পর বাদামি রঙ হয়ে এলে নামিয়ে ফেলুন।

আলু পাকোরা

উপকরণ :১. ১০০ গ্রাম বেসন,২. ১টি মাঝারি আকৃতির পেঁয়াজ কুচি,৩. ৩টি আলু কুচি করা,৪. ১ চা চামচ লবণ,


৫. ১ চা চামচ হলুদ,৬. ২টি মরিচ কুচি করা,৭. ধনিয়া পাতা, ১/২ চা চামচ মরিচ গুড়া,৮. ১/২ চা চামচ জিরা গুড়া,৯. পানি পরিমাণমতো,১০. তেল পরিমাণমতো।

প্রণালি :> বেসনের সঙ্গে সব মশলা এবং লবণ মিশিয়ে পরিমাণ মতো পানি দিয়ে মিশ্রণ তৈরি করুন। বেসনের মিশ্রণের সঙ্গে পেঁয়াজ, আলু, ধনিয়া পাতা, মরিচ কুচি মেখে নিন। ডুবো তেলে মচমচে করে ভেজে সস দিয়ে পরিবেশন করুন।

পেঁয়াজ পাকোরা

উপকরণ:১. ১ কাপ পেঁয়াজ মোটা করে কুচি করা,২. ১টি ডিম, ১ কাপ বেসন,৩. ১ চা চামচ হলুদ গুঁড়া,৪. ১ চা চামচ মরিচ গুঁড়া,৫. আধা চা চামচ গোল মরিচ গুঁড়া,


৬. ১ চা চামচ বেকিং সোডা,৭. আধা চা চামচ টেস্টিং সল্ট,৮. লবণ পরিমাণ মতো,৯. চালের গুড়া সামান্য১০. তেল পরিমাণমতো।

প্রণালি :> তেল বাদে সব উপকরণ এক সঙ্গে ভালো করে মিশিয়ে মিশ্রণ তৈরি করুন। একটি প্যানে তেল গরম করে তাতে পেঁয়াজের মিশ্রণটি অল্প অল্প করে ছেড়ে বাদামী করে ভাজুন।

শিঙ্গাড়া

খামিরের জন্য :১. ময়দা আড়াই কাপ,২. লবণ আধা চা-চামচ,৩. তেল ২ টেবিল-চামচ,৪. বেকিং পাউডার আধা চা চামচ,৫. পানি প্রয়োজন মতো,৬. কালোজিরা ১ চিমটি।

প্রণালি :> একটি বাটিতে ময়দা, লবণ, বেইকিং পাউডার, কালোজিরা ও তেল নিয়ে ভালো করে হাতে মিশিয়ে নিন। এবার অল্প অল্প পানি দিয়ে পরোটার খামিরের মতো বানিয়ে ভালো করে মথে নিন ঢেকে রেখে দিন ২০ থেকে ২৫ মিনিট।

পুরের জন্য :১. আলু ৩টি মাঝারি আকারের (ছোট কিউব করে কাটা ও সিদ্ধ করা),২. পেঁয়াজ ২টি (কুচি করা),৩. আদ ও রসুন বাটা ২ চা-চামচ,৪. কাঁচামরিচ-কুচি ২-৩টি,৫. গাজর কিউব করে কাটা,৬. মটরশুঁটি সিদ্ধ এক মুঠ,


৭. ধনিয়াপাতা-কুচি ২ টেবিল-চামচ,৮. হলুদগুঁড়া আধা চা-চামচ,৯. টালা ধনিয়া ও জিরা গুঁড়া আধা চা-চামচ,১০. পাঁচফোড়ন গুঁড়া আধা চা-চামচ,১১. লবণ স্বাদমতো,১২. তেল পরিমাণমতো।

পুরের প্রণালি :> একটি কড়াইতে তেল গরম করে পেঁয়াজকুচি, মরিচকুচি, আদা ও রসুন বাটা দিয়ে হালকা ভেজে তাতে পরিমাণ মতো লবণ, হলুদগুঁড়া, পাঁচফোড়ন, ধনিয়া ও জিরা গুঁড়া দিয়ে হালকা ভেজে নিন। তারপর গাজর এবং মটর সিদ্ধ দিয়ে দুই মিনিট ভেজে আলুগুলো হাত দিয়ে একটু ভেঙে দিয়ে দিন। > তিন থেকে চার মিনিট নাড়াচাড়া করে ধনিয়াপাতা-কুচি দিয়ে নেড়ে নামিয়ে ফেলুন এবং ঠাণ্ডা করে নিন।

প্রণালি :> খামির কয়েক ভাগে ভাগ করে বল বানিয়ে রাখুন। > একটি বল নিয়ে ডিম্বাকৃতি আকারে একটু মোটা করে রুটি বেলে দুই ভাগ করে নিন। তারপর একটি ভাগ নিয়ে পানের খিলির মতো করে ভাজ করে পুর ভরে মুখটা আটকে দিন।> এই মুখের এক প্রান্ত অন্য প্রান্তের সঙ্গে আরেকটা ভাজ দিন এবং সুচালু করে আকার দিয়ে নিন তিন দিকে।> এভাবে সব শিঙ্গাড়া তৈরি করুন এবং ডুবো তেলে ভাজুন বা হালকা ভেজে তুলে নিন। একদম ঠাণ্ডা করে জিপলক ব্যাগে ভরে ফ্রিজে রেখে দিন। প্রয়োজন অনুযায়ী ভেজে পরিবেশন করুন গরম গরম সসের সঙ্গে।

** নোট :এই শিঙ্গাড়া সংরক্ষণের জন্য প্রথমে তৈরি করে গরম তেলে দিয়ে হালকা ভেজে তুলে নিন। একদম ঠাণ্ডা হয়ে গেলে ডিপ ফ্রিজে রেখে দিন জিপলক ব্যাগে ভরে। অনেকদিন ভালো থাকবে। খেতে ইচ্ছে করলে অথবা মেহমান আসলে ফ্রিজ থেকে বের করে ১০ মিনিট পর ভেজে পরিবেশন করলেই হবে।

মিনি কিমা কুলচা

উপকরণ :১. গরুর সেদ্ধ কিমা ১ কাপ,২. আদা-রসুন বাটা ১ চা-চামচ,৩. কাঁচা মরিচ কুচি ১ টেবিল-চামচ,৪. গরমমসলা গুঁড়া আধা চা-চামচ,৫. লবণ স্বাদমতো,


৬. পেঁয়াজ কুচি আধা কাপ,৭. তেল ২ টেবিল-চামচ,৮. হলুদ ও মরিচ গুঁড়া সামান্য,৯. ধনিয়াপাতা কুচি ২ টেবিল-চামচ,১০. খামিরের জন্য ময়দা ২ কাপ,১১. পরিমাণমতো লবণ,১২. পরিমাণমতো পানি।

প্রণালি :> প্যানে তেল গরম করে পেঁয়াজ কুচি হালকা ভেজে আদা, রসুন বাটা দিয়ে কষিয়ে হলুদ, মরিচ, গরমমসলা গুঁড়া ও স্বাদমতো লবণ দিয়ে নাড়তে হবে। এবার সেদ্ধ কিমা দিয়ে ভালোভাবে রান্না করুন। পানি শুকিয়ে গেলে ধনিয়াপাতা দিয়ে নেড়ে নামিয়ে নিন। ময়দার খামির করে ছোট ছোট বল বানিয়ে নিন। এবার বলগুলোতে কিমার পুর ভরে হালকা করে বেলে নিন। গরম তাওয়ায় সেঁকে নামিয়ে সসের সঙ্গে পরিবেশন করুন।

কয়েল জিলাপি

উপকরণ :১. ময়দা ৪ কাপ,২. খাবার সোডা,৩. পানি পরিমাণমতো,


৪. তেল পরিমাণমতো।

সিরার জন্য :১. ১ কেজি চিনি২. ১ লিটার পানি।

প্রণালি :> পানিতে ময়দা গুলিয়ে একটু নরম করে খামির তৈরি করে ২ দিন গরম জায়গায় ঢেকে রাখতে হবে। এবার তাতে খাবার সোডা দিয়ে ভালোভাবে মিশ্রণ তৈরি করতে হবে। জিলাপি বানানোর জন্য একটা কাপড় নিয়ে মাঝে ফুটা করে তাতে খামির নিতে হবে। তেল গরম করে কাপড় চিপে পেঁচিয়ে জিলাপি ভাজতে হবে। পানি ও চিনি জ্বাল দিয়ে সিরা তৈরি করে তাতে জিলাপি ডুবিয়ে তুলতে হবে।

চিকেন হালিমডাল সেদ্ধ :উপকরণ :১. মুগ ডাল ভাজা আধা কাপ,২. মসুর ডাল আধা কাপ,৩. অড়হর ডাল আধা কাপ,৪. মটর ডাল আধা কাপ,৫. ছোলার ডাল আধা কাপ,৬. মাষকলাই ডাল আধা কাপ,৭. পোলাও চাল আধা কাপ,৮. লবণ স্বাদমতো।

প্রণালি :> সব উপকরণ ভালোভাবে ধুয়ে হলুদ ১ চা-চামচ ও মরিচ গুঁড়া ১ টেবিল-চামচ, লবণ দিয়ে সেদ্ধ দিতে হবে। সেদ্ধ হলে ভালোমতো ঘুঁটে নিন।

মাংস রান্না :উপকরণ :১. চিকেন ১টি ছোট ছোট করে কাটা,২. হলুদ আধা চা-চামচ,৩. মরিচ ১ চা-চামচ,৪. জিরা ১ চা-চামচ,


৫. আদা ১ টেবিল-চামচ,৬. রসুন আধা চা-চামচ,৭. গরমমসলা ৩/৪টি করে,৮. তেল ১ কাপ,৯. লবণ স্বাদমতো,১০. পেঁয়াজ ১ কাপ।

প্রণালি :> পাত্রে সব মাখিয়ে মাংস ভালোমতো কষিয়ে রান্না করুন। এবার সেদ্ধ করে রাখা ডাল মাংসের হাঁড়িতে আবার ১৫/২০ মিনিট রান্না করুন।

পরিবেশন :উপকরণ :১. পেঁয়াজ বেরেস্তা আধা কাপ,২. আদা কুচি ১ টেবিল-চামচ,৩. ধনিয়াপাতা ২ টেবিল-চামচ,৪. লেবু পরিমাণমতো,৫. জিরা গুঁড়া ১ টেবিল-চামচ।

প্রণালি :> বাটিতে হালিম নিয়ে উল্লিখিত উপকরণগুলো দিয়ে পরিবেশন করুন।

পটেটো বাস্কেট

উপকরণ :১. আলু কুচি ১ কাপ,২. কিমা আধা কাপ সেদ্ধ,৩. পেঁয়াজ কুচি ১ কাপ,৪. কাঁচা মরিচ ১ টেবিল-চামচ,


৫. ধনিয়াপাতা কুচি ১ টেবিল-চামচ,৬. টমেটো সস ২ টেবিল-চামচ,৭. চিজ আধা কাপ,৮. তেল সামান্য,৯. লবণ পরিমাণমতো,১০. গোলমরিচ গুঁড়া ১ চা-চামচ।

প্রণালি :> প্রথমে আলু ছিলে ভাজির মতো গ্রেটারে গ্রেট করে নিন। এবার লবণ মাখিয়ে হাত দিয়ে ভালোমতো চিপে নিন। তারপর বেকিং ট্রেতে বাস্কেটের মতো করে আলু ঝুরিগুলো বিছিয়ে মাঝে সেদ্ধ কিমা, পেঁয়াজ, কাঁচা মরিচ, ধনিয়াপাতা ও সস দিন। এবার উপরে চিজ দিয়ে বেক করুন ১৫/২০ মিনিট, ১৮০ ডিগ্রিতে। গরম গরম পরিবেশন করুন।

ফালাফেল

উপকরণ :১. সেদ্ধ বাটা মটরশুঁটি ২ কাপ,২. কাঁচা মরিচ বাটা ২ টেবিল-চামচ,৩. লবণ পরিমাণমতো,


৪. ধনিয়াপাতা ২ টেবিল-চামচ,৫. গরমমসলা গুঁড়া ১ চা-চামচ,৬. চাট মসলা আধা চা-চামচ,৭. তেল ভাজার জন্য,৮. পেঁয়াজ কুচি ২ টেবিল-চামচ।

প্রণালি :> সব উপকরণ ভালোমতো মেখে নিন। তারপর টিকিয়া কাবাবের মতো শেপ দিয়ে তেলে ভেজে তুলুন।

লেয়ার সমুচা

পুরের জন্য :উপকরণ :১. কিমা আধা কাপ বা ডিম ২টা,২. সস ১ টেবিল-চামচ,৩. পেঁয়াজ আধা কাপ,৪. লবণ পরিমাণমতো,৫. তেল ২ টেবিল-চামচ,৬. ধনিয়াপাতা সামান্য,


৭. কাঁচা মরিচ স্বাদমতো,৮. মরিচ গুঁড়া সামান্য,৯. হলুদ গুঁড়া সামান্য,১০. গোলমরিচ গুঁড়া সামান্য,১১. গরমমসলা কোয়ার্টার চা-চামচ।

প্রণালি :> প্যানে তেল গরম করে প্রথমে পেঁয়াজ দিতে হবে। তারপর সেদ্ধ কিমা বা ডিম দিয়ে ভাজতে হবে। ভাজার সময় বাকি উপকরণ দিন। নামাবার আগে ধনিয়াপাতা দিতে হবে।

ডো এর জন্য :উপকরণ :১. ময়দা ২ কাপ,২. লবণ পরিমাণমতো,৩. পানি পরিমাণমতো।

প্রণালি :> প্রথমে ডো বানিয়ে ছোট ছোট রুটি তৈরি করে তেল মেখে নিতে হবে। তারপর শুকনা ময়দা ছিটিয়ে একটার উপর একটা দিয়ে ৬/৭টা রুটি লাগিয়ে একটা রুটি বানাতে হবে। এবার রুটিটাকে ৪ ভাগ করে ভাঁজ দিয়ে তাতে পুর ভরে মুখ আটকে দিতে হবে। তেলে ভেজে গরম গরম সসসহ পরিবেশন করুন।

স্পাইসি চিকেন স্টিক

উপকরণ :১. চিকেন লম্বা করে কাটা ২৫০ গ্রাম (বোনলেস),২. আদা রসুন বাটা ১ টেবিল-চামচ,৩. ময়দা কোয়ার্টার কাপ,


৪. কাঁচা মরিচ বাটা ১ চা-চামচ,৫. মরিচ গুঁড়া ১ চা-চামচ, ডিম ১টা,৬. টোস্টের গুঁড়া ১ কাপ,৭. সয়াসস ১ টেবিল-চামচ,৮. ক্রাম পরিমাণমতো।

প্রণালি :> টোস্টের গুঁড়ায় মরিচ গুঁড়া মিশিয়ে রাখতে হবে। মুরগির সঙ্গে ক্রাম ছাড়া সব একসঙ্গে দিয়ে মাখিয়ে নিতে হবে। আধা ঘণ্টা পর ক্রাম মাখানো মাংস জড়িয়ে গরম ডুবো তেলে ভেজে নিন। এবার সাসলিকের কাঠিতে গেঁথে পরিবেশন করুন।চিকেন ললিপপ

উপকরণ :১. ডিম ১টি, কর্নফাওয়ার আধা কাপ (প্রয়োজনে আরও বেশি দেওয়া যাবে),২. গোলমরিচগুঁড়ো ১ চা চামচ,৩. আদাবাটা আধা চা চামচ,
৪. রসুনবাটা আধা চা চামচ,৫. সয়াসস ১ টেবিল চামচ,৬. স্বাদ লবণ সামান্য,


৭. লবণ সামান্য,৮. তেল ভাজার জন্য।

প্রণালি :> চিকেন ললিপপের সব উপকরণ দিয়ে কমপক্ষে ২ ঘণ্টা মাখিয়ে রাখুন। তার পর ডুবো তেলে সোনালি করে ভেজে নিন। এমনভাবে ভাজবেন যেন ভেতরে সিদ্ধ হয় আর বাইরে গোল্ডেন ব্রাউন হয়।চিকেন ললিপপের সস :উপকরণ :১. বারবিকিউ সস আধা কাপ,২. ১ কোয়া রসুন সদ্য মিহি করে ছেঁচে নেওয়া,৩. চিলিসস ১ টেবিল চামচ,৪. টমেটো সস ১ টেবিল চামচ,৫. চিনি স্বাদমতো,৬. সামান্য একটু লেবুর রস,৭. চিকেন স্টক অল্প।

প্রণালি :> এসব উপকরণ খুব ভালো করে মিশিয়ে মসৃণ পেস্ট তৈরি করুন। বেশি ঘন মনে হলে চিকেন স্টক মিশিয়ে পাতলা করুন। চুলায় দিয়ে ফুটে উঠলেই তৈরি আপনার সস। গরম গরম চিকেন ললিপপের ওপর এই সস ছড়িয়ে পরিবেশন করুন।

চিকেন চিজ বল

উপকরণ:১. হাড়ছাড়া মুরগির মাংস ২ কাপ,২. ঢাকাই পনিরকুচি আধা কাপ,৩. আদাবাটা আধা চা চামচ,৪. রসুনবাটা আধা চা চামচ,৫. জয়ফল ও জয়ত্রী গুঁড়া ১ চিমটি,৬. গরম মসলা গুঁড়া ১/৪ চা চামচ,৭. গোলমরিচ গুঁড়া ১/৪ চা চামচ,৮. ময়দা আধা কাপ,

৯. কাঁচামরিচ মিহিকুচি ৪টি,১০. পাউরুটি কিউব ২ কাপ,১১. হোয়াইট সস আধা কাপ,১২. ধনিয়াপাতাকুচি ২ টেবিল চামচ,১৩. পেঁয়াজ বেরেস্তা আধা কাপ,১৪. ডিম ১টি,১৫. লবণ পরিমাণমতো,১৬. তেল ভাজার জন্য।

প্রণালি :> হাড়ছাড়া মুরগির মাংস ছোট কিউব করে কেটে নিন। চিকেন কিউবের সঙ্গে গোলমরিচ, আদাবাটা, রসুনবাটা, লবণ, জয়ফল ও জয়ত্রীগুঁড়া, গরম মসলাগুঁড়া, সামান্য পানি দিয়ে সিদ্ধ করে পানি শুকিয়ে নিন। ডিম ফেটিয়ে নেবেন। সিদ্ধ করা চিকেন কিউবের সঙ্গে ডিম ও ময়দা ছাড়া বাকি উপকরণ ভালোভাবে মিশিয়ে নিন। ডোটি পাতলা হলে আরও পাউরুটি কিউব দেবেন। ডো দিয়ে বল বানিয়ে ভেতরে পনিরকুচি ভরে ময়দায় গড়িয়ে ফেটানো ডিমে ডুবিয়ে গরম তেলে মাঝারি আঁচে চিজ বল বাদামি করে ভেজে তুলুন।

পুরভরা সুজির কচুরি

উপকরণ :ডো তৈরির জন্য :১. ১/২ কাপ সুজি,২. ১ কাপ পানি,৩. ১ টেবিলচামচ জিরা,৪. ১ টেবিল চামচ তেল।

আলু পুরের জন্য :১. ১টা আলু সিদ্ধ,২. ২ টা মরিচ,


৩. লবণ স্বাদমত,৪. চাট মশলা।

প্রণালি :> প্রথমে একটি পাত্রে পানিতে সুজি, জিরা, লবণ(সামান্য পরিমাণে), তেল দিয়ে সিদ্ধ করতে দিন। সুজি ঘন হয়ে এলে চুলা থেকে নামিয়ে ফেলুন।> কিছুক্ষণের জন্য ঠান্ডা হতে দিন। হালকা গরম গরম থাকতে সুজি দিয়ে কচুরি তৈরি করা শুরু করুন। > এরপর আরেকটি বাটিতে সিদ্ধ আলু ভর্তা, মরিচ, চাট মশলা, লবণ ভাল করে মিশিয়ে পুর তৈরি করুন। > হাতে একটু তেল মেখে নিন। সুজির ডো হাতে নিয়ে কিছুটা চ্যাপ্টা করে তাতে আলুর পুরটা ঢুকিয়ে দিন।> সুজির ডো দিয়ে আলুর পুরটা ভাল করে ঢেকে দিন। এমনভাবে ঢাকুন যাতে পুর দেখা না যায়। > এরপর তেল গরম হয়ে এলে সুজির কচুরিগুলো তেলে দিয়ে দিন। খুব বেশি কচুরি একসাথে দিবেন না। এতে কচুরি ভেঙ্গে যাওয়ার সম্ভাবনা থাকে। > কচুরিগুলো বাদামী রং হওয়া পর্যন্ত ভাজুন। বাদামী রং হয়ে এলে চুলা থেকে নামিয়ে ফেলুন। > ব্যস তৈরি হয়ে গেলো সুজির কচুরি।

ব্রেড কাটলেট

উপকরণ :১. ৪টি পাউরুটির টুকরো,২. ২টি আলু সিদ্ধ,৩. ১/২ মাঝারি আকৃতির পেঁয়াজ কুচি,৪. ১/২ ক্যাপসিকাম কুচি,৫. ২ টেবিল চামচ বেবি কর্ন,৬. ১টি কাঁচা মরিচ কুচি,৭. ১ চা চামচ আদার পেস্ট,


৮. ১/৪ চা চামচ হলুদের গুঁড়া,৯. ১/২ চা চামচ কাসমেরি লাল মরিচ গুঁড়া,১০. লবণ পরিমাণমতো,১১. ১/২ চা চামচ গরম মশলা,১২. ১/২ চা চামচ চ্যাট মশলা,১৩. ১ টেবিল চামচ কর্ন ফ্লাওয়ার,১৪. ১/৪ চা চামচ গোল মরিচ গুঁড়া,১৫. ১ টেবিল চামচ লেবুর রস,১৬. ২ টেবিল চামচ ধনিয়াপাতা কুচি।

প্রণালি :> প্রথমে পাউরুটির চারপাশ কেটে নিন। এবার পাউরুটি ছোট ছোট কুচি করে নিন।> এই পাউরুটির সাথে সব সবজি, কর্ন ফ্লাওয়ার, লেবুর রস এবং ধনেপাতা কুচি একসাথে মিশিয়ে নিন।> যদি প্রয়োজন পড়ে তাহলে এতে আরো ব্রেড ক্রাম্বস বা ব্রেড দিয়ে দিন। লক্ষ্য রাখবেন ডোটি যেন আঠালো হয়।> ফ্রাই প্যানে তেল গরম করতে দিন। পাউরুটির ডো দিয়ে পছন্দমত আকৃতির কাটলেট তৈরি করুন। > কাটলেটগুলো তেলে দিয়ে দিন। বাদামী রং হয়ে আসা পর্যন্ত ভাজুন।> ব্যস তৈরি হয়ে গেলো মজাদার ব্রেড কাটলেট।

পাপড়ি পুরি

পুর :১. সেদ্ধ ডাবলি ১ কাপ,২. পেঁয়াজ কোয়ার্টার কাপ,৩. লবণ পরিমাণমতো,


৪. কাঁচা মরিচ কুচি ২ টেবিল-চামচ,৫. ধনিয়াপাতা ১ টেবিল-চামচ,৬. তেঁতুলের সস পরিমাণমতো,৭. চাট মসলা কোয়ার্টার চা-চামচ,৮. জিরা গুঁড়া, মরিচ গুঁড়া ১ টেবিল-চামচ।> সব একসঙ্গে মাখিয়ে নিতে হবে।

পুরি উপকরণ :১. ময়দা আধা কাপ,২. সুজি আধা কাপ,৩. পানি পরিমাণমতো,৪. লবণ পরিমাণমতো,৫. তেল ভাজার জন্য।

প্রণালি :> ময়দা, সুজি, লবণ ও পানি একত্রে মিশিয়ে ভালো করে মাখিয়ে খামির করতে হবে। তারপর বড় করে বেলে গোল কাটার দিয়ে কেটে তেলে ভেজে তুলতে হবে। এবার ফুচকার মতো মাঝখানে ছিদ্র করে মাখানো পুর দিতে হবে। তেঁতুলের সস দিয়ে পরিবেশন করুন।