মজার রান্না ডেস্ক: পবিত্র রমজান মাস মুসলমানদের জন্য একটি সংযমের মাস। এ মাসে সঠিক নিয়মে রোজা রাখা প্রতিটি মুসলমানের জন্য ফরজ। আর এ ফরজ কাজ আদায়ের জন্য সেহেরিতে অংশগ্রহণ করতে হয় সকলকেই। অনেক সময় সেহেরিতে আমরা অনেক মজাদার খাবার খেয়ে থাকি।

এ ধরণের খাবারগুলো আমাদের প্রতিনিয়তই অসুস্থ করে তোলে এবং রমজানে কষ্ট বাড়িয়ে দেয় অনেকটাই যা আমরা অনেকেই জানি না। তাই সারাদিন সুস্থ দেহে রোজা রাখতে চাইলে সেহরির খাবারে কিছুটা নিয়ম মেনে চলা অত্যন্ত প্রয়োজনীয়। কেননা সেহরির খাবারের উপরেই নির্ভর করবে আপনার সারাদিনের সুস্থতা। সারাদিন সুস্থ থাকতে চাইলে সেহরিতে যে ৭ টি খাবার একেবারেই খাবেন না।

ডিম :

ডিম পুষ্টিকর একটি খাবার। এ খাবারটি শরীরে প্রয়োজনীয় প্রোটিন, ভিটামিন পূরণ করে থাকে। কিন্তু সেহরিতে ডিমের কোনো রান্না তরকারি একেবারে খাবেন না। কেননা ডিম খেলে আপনার পেটে গ্যাস তৈরি হতে পারে যা সারাদিনই ডিমের গন্ধযুক্ত ঢেকুরের সৃষ্টি করবে। তাছাড়া হুট করে ব্লাড প্রেসারও বেড়ে যেতে পারে।

ডাল :
আমাদের দেশে ভাতের সাথে ডাল থাকবেই। কিন্তু সেহরির রাতে কখনই ডাল জাতীয় খাবার খাবেন না। বিশেষ করে ডালভুনা, মুগ বা বুটের ডাল। খেতে চাইলে মসুর ডাল পাতলা করে খান। কেননা ডাল খালি পেটে প্রচুর গ্যাস তৈরি করে।ফলে আপনি সারাদিন পেটের ব্যথা অনুভব করবেন এবং অসুস্থ হয়ে যাবেন।

খিচুরি :
খিচুরি অত্যন্ত গরম একটি খাবার যা শরীরকে গরম করে তোলে। তাই সেহরির রাতে কখনই এই গরম খাবারটি খাবেন না।কেননা এটি আপনার পেট খারাপ করে দিতে পারে এছাড়া অতিরিক্ত গরমের কারণে আপনি শারীরিকভাবে অসুস্থও হয়ে যেতে পারেন।

তেলযুক্ত খাবার :
সেহরিতে অধিক তেলযুক্ত খাবার খাবেন না। পোলাও, বিরিয়ানি, ডালের বড়া বা অন্য ভাজা খাবার গুলো এড়িয়ে চলুন।কারণ এ খাবারগুলো বারবার গলা শুকিয়ে যাওয়াসহ নানান ধরণের সমস্যা সৃষ্টি করে থাকে।

লেবু :
লেবু খেলে আপনার অ্যাসিডিটির মাত্রা বেড়ে গিয়ে সহজেই অসুস্থ হয়ে যেতে পারে। তাই সেহরিতে লেবু খাবেন না।

কোল্ড ড্রিংকস :
কোল্ড ড্রিংকস আসলে অতিরিক্ত চিনি আর মিষ্টি ছাড়া কিছুই নয়।এতে করে অযথা শরীরের বাজে কিছু পদার্থ ছাড়া আর কিছুই ঢোকানো হয় না।এছাড়াও কোল্ড ড্রিঙ্কস দেহকে পানিশুন্য করে ফেলে।তাই সেহরিতে কোল্ড ড্রিংকস পরিহার করুন।

ফাস্টফুড জাতীয় খাবার :
সেহরিতে খাওয়ার রুচি এমনিতেই সবারই কম থাকে। তাই বলে কখনই ফাস্টফুড জাতীয় খাবার সেহরিতে খাবেন না। এতে করে আপনার গ্যাসের সমস্যা সহ হজমে গড়বর দেখা দিতে পারে এবং শারীরিকভাবে অতি তাড়াতাড়ি আপনি অসুস্থ হয়ে পড়বেন।