মজার রান্না ডেস্ক: বিভিন্ন রেস্টুরেন্টে ফ্রাইড চিকেন বিভিন্নভাবে তৈরি করা হয়। খুব মুচমুচে বলে অনেকেই কেএফসির ফ্রাইড চিকেন পছন্দ করেন। বাড়িতে তা তৈরি করতে গেলে ঠিক স্বাদটা পাওয়া যায় না যেন, মনের মতো মুচমুচে হয় না। কিন্তু কেএফসির চিকেন ফ্রাই তৈরিতে এমন কী রহস্য আছে যাতে তা এতো মুচমুচে হয়? জেনে নিন মুচমুচে ফ্রাইড চিকেন তৈরির কিছু টিপস-

১) ১১টি মশলা

কেএফসির ফ্রাইড চিকেনের মতো স্বাদ পেতে হলে আপনার লাগবে তাদের সিক্রেট স্পাইস ব্লেন্ড। এতে ব্যবহার করা হয় ১১টি মশলা। দুই কাপ ময়দার সাথে এই মশলাগুলো মিশিয়ে নিতে হয়। মুরগীর টুকরোগুলো ডিম ও দুধে ভিজিয়ে এরপর এই ময়দায় গড়িয়ে ভাজতে হয়। মশলাগুলো হলো-

২/৩ টেবিল চামচ লবণ,৩ টেবিল চামচ সাদা গোলমরিচ,১ টেবিল চামচ কালো গোলমরিচ,১/২ টেবিল চামচ ড্রাই বেসিল,১ টেবিল চামচ সেলেরি সল্ট, ১ টেবিল চামচ ড্রাই মাস্টার্ড,২ টেবিল চামচ গার্লিক সল্ট,১ টেবিল চামচ আদা কুচি,১/৩ টেবিল চামচ অরিগানো,৪ টেবিল চামচ পাপরিকা,১/২ টেবিল চামচ থাইম,

২) সাথে সাথেই ভেজে ফেলুন

অনেকেই দাবি করেন, মুরগীর মাংস ডিম ও ময়দায় মাখিয়ে কিছুক্ষণ রেখে দেওয়া উচিত। আসলে কিন্তু তা নয়! ময়দায় গড়িয়ে সাথে সাথেই ভেজে ফেলা উচিত মাংসটাকে। দেরি করলে ওপরের স্তরটা নরম হবে, ক্রিসপি হবে না। আর খুব সহজেই মাংস থেকে এই স্তরটা খুলে চলে আসবে।

৩) আলাদা ফ্রায়ার ব্যবহার করুন

কেএফসি ব্যবহার করে হাই টেম্পারেচার, ইন্ডাস্ট্রিয়াল-স্ট্রেংথ প্রেশার ফ্রায়ার। বাড়িতে তো আর এই ফ্রায়ার ব্যবহার করা সম্ভব নয়। তবে ডিপ ফ্রায়ার ব্যবহার করতে পারেন। ৩৫০ থেকে ৩৬০ ডিগ্রী তাপমাত্রায় তেল গরম করুন এবং মুরগীর টুকরোগুলো ভেজে নিন ঠিক ১২ মিনিট।

৪) আসল ‘সিক্রেট ইনগ্রিডিয়েন্ট’

স্বাদ বাড়ানোর জন্য আমাদের খুব পরিচিত একটি উপাদান ব্যবহার করে কেএফসি, আর তা হলো মনোসোডিয়াম গ্লুটামেট বা টেস্টিং সল্ট। ১১টি মশলার মিশ্রণের সাথে তা দেওয়া যেতে পারে। বা ফ্রাই করার পর মুরগীর ওপর ছড়িয়ে দেওয়া যেতে পারে।

৫) সাথে সাথেই খাওয়া যাবে না

তেল থেকে নামিয়ে সাথে সাথে খাওয়া যাবে না। কেএফসির রাঁধুনিরা ১৭৫ ডিগ্রিতে প্রিহিট করা ওভেনে ২০ মিনিট রেখে দেন ফ্রাইড চিকেন। এতে মুরগীর ভেতরটা ভালোভাবে সেদ্ধ হয় এবং তা মুচমুচে হয়ে ওঠে। বাড়িতেও গরম ওভেনে কিছু সময় রেখে দিতে পারেন আপনার ফ্রাইড চিকেন।

সূত্র: প্রিয়.কম