মজার রান্না ডেস্ক: ভারতের বিভিন্ন অঞ্চলে বিভিন্ন ধরনের খাবার তৈরি করা হয়। হালকা স্ন্যাকস থেকে শুরু করে রাতের খাবার, সবখানেই বৈচিত্র্য রয়েছে ভারতীয় খাবারের। আপনাদের ভারতের সেরা ৫টি রাতের খাবারের সাথে পরিচয় করিয়ে দেব, যেগুলো চাইলে আপনারা নিজেরাও বাসায় তৈরি করতে পারেন।

লেমন চিকেন

উপাদান

আধা কাপ সরিষার তেল

২ চা চামচ জিরা

২০টি শুকনা মরিচ

৮-১০টি পেঁয়াজ কুচি

আধা কাপ রসুন কুচি

দেড় চা চামচ হলুদের গুঁড়া

২ চা চামচ ধনিয়া গুঁড়া

৩-৪ চা চামচ লবণ

৩ কেজি মুরগি

১ কাপ লেবুর রস

৩-৪ চা চামচ আখের রস

ধনেপাতা

রান্না পদ্ধতি

প্রথমে চুলায় কড়াই বা হাঁড়ি বসিয়ে সরিষার তেল ছেড়ে দিতে হবে। তেল গরম হয়ে ধোঁয়া উঠলে তার মধ্যে জিরা, শুকনা মরিচ ও পেঁয়াজ কুচি দিয়ে ভেজে নিতে হবে।

এরপর রসুন কুচি, হলুদের গুঁড়া, ধনিয়া গুঁড়া ও লবণ দিয়ে মাঝারি আঁচে নাড়তে হবে। সবকিছু নরম হয়ে এলে ও সুগন্ধ বের হলে মুরগির মাংস দিতে হবে। মুরগির মাংস ভালোভাবে ভেজে নিতে হবে।

এরপর লেবুর রস যোগ করতে হবে। সবশেষে যোগ করতে হবে আখের রস। এরপর ঢাকনা দিয়ে ঢেকে ৪৫ মিনিট থেকে ১ ঘণ্টা মাঝারি আঁচে রান্না করতে হবে।

মাংস সেদ্ধ হয়ে এলে তার ওপর ধনেপাতা কুচি কুচি করে কেটে ছিটিয়ে দিতে হবে। এরপর ধনেপাতাসহ নেড়ে রুটি বা ভাতের সাথে পরিবেশন করতে হবে।

চেট্টিনাদ ফিশ ফ্রাই

মূল উপাদান

আইড় মাছের পেটি, বড় ২ টুকরা

২ টেবিল চামচ তেল

মেরিনেট করার উপাদান

৭-৮ কোয়া রসুন

১ টুকরা আদা বাটা

১ চা চামচ জিরা

১ চা চামচ মৌরি

২ চা চামচ আস্ত ধনিয়া

২ চা চামচ গোল মরিচ

আধা চা চামচ সরিষা

৯-১০টি কারি পাতা

লবণ, স্বাদমতো

১ চা চামচ তেল

১ টেবিল চামচ পানি

অর্ধেক টমেটো কুচি

১ চা চামচ মরিচের গুঁড়া

২ চা চামচ হলুদের গুঁড়া

৫ টেবিল চামচ তেঁতুল

১ টেবিল চামচ বেসন

লেবুর রস

রান্না পদ্ধতি

প্রথমে মাছের পেটি সমান করে মাঝারি আকারে কেটে নিতে হবে। এরপর একটা কড়াইতে আদা, রসুন, জিরা, মৌরি, গোল মরিচ, ধনিয়া, সরিষা ও কারি পাতা তেল ছাড়া ভেজে নিতে হবে।

এরপর এগুলো পাটায় বেটে নিতে হবে। ভালোভাবে পেষার জন্য সামান্য তেল, লবণ ও পানি যোগ করতে হবে। এর সাথে টমেটো কুচি, ধনিয়া গুঁড়া, হলুদের গুঁড়া, লবণ ও তেঁতুল দিয়ে আবার একসাথে পিষতে হবে।

এগুলো পেষার পর মাছের টুকরার উপর ছড়িয়ে দিতে হবে। মাছের ওপর অল্প করে বেসন ছিটিয়ে দিয়ে মেরিনেট করার জন্য ১৫-২০ মিনিট ফ্রিজে রাখতে হবে।

এরপর গরম কড়াইতে তেল গরম করে মাছ ভাজতে হবে। মাছ ভাজা হয়ে গেলে এর উপর লেবুর রস ছিটিয়ে দিয়ে গরম গরম পরিবেশন করতে হবে।

গালাউটি কাবাব

প্রধান উপাদান

আধা কেজি মাংসের কিমা (গরু অথবা খাসি)

মসলা (বাটার জন্য)

৭৫-১০০ গ্রাম কাঁচা পেঁপের কুচি

১ টেবিল চামচ আদা কুচি

১ টেবিল রসুন কুচি

লবঙ্গ, ৮ পিস

কালো এলাচ, ২ টুকরা

২ চা চামচ পোস্তদানার গুঁড়া

গোল মরিচ, ৪ পিস

অর্ধেক দারুচিনি

২ টেবিল চামচ নারকেল, ভাজা

সাদা এলাচ, ৫ পিস

১ টেবিল মরিচের গুঁড়া

জায়ফল, এক টুকরার চার ভাগের এক ভাগ

লবণ

কাবাব তৈরির উপাদান

১ কাপ পেঁয়াজ প্রথমে তেলে ভেজে, তারপর ঘি দিয়ে মচমচে করে ভাজতে হবে

১/৪ কাপ ধনেপাতা কুচি

১ টেবিল চামচ কাঁচা মরিচ কুচি

৩ টেবিল চামচ বেসন

ঘি

ডিম, ১টি

লেবুর রস

তৈরির পদ্ধতি

মসলা বাটা দিয়ে মাংসের কিমা মেরিনেট করে ৪-৫ ঘণ্টা রাখতে হবে। এরপর ধনেপাতা, কাঁচা মরিচ, বেসন ও ডিম একসাথে মিশাতে হবে।

এরপর মাংস যোগ করে গোল আকারে কয়েক পিস পিস করে আধাঘণ্টা ফ্রিজে রাখতে হবে।

এরপর কড়াইতে ঘি গরম করে কাবাব ভেজে নিতে হবে। একপাশ ভালো করে ভেজে নিয়ে অপর পাশ ভাজতে হবে। তারপর কড়াই থেকে নামিয়ে কাবাবের ওপর দিয়ে লেবুর রস ছিটিয়ে দিয়ে পরিবেশন করতে হবে।

লক্ষ্ণোর আলুর দম

প্রধান উপাদান

আলু, আধা কেজি

১০০ গ্রাম আলু, ভর্তা করা

১০০ গ্রাম পনির, টুকরা টুকরা করে নেওয়া

১ চা চামচ গুঁড়া মরিচ

১ চা চামচ গরম মসলা

দেড় চা চামচ কাসুরি মেথি

৩ টেবিল চামচ ঘি

১ টেবিল চামচ মাখন

১ টেবিল চামচ ক্রিম

লবণ, স্বাদমতো

পেঁয়াজের ঝোল তৈরির উপাদান

২০০ গ্রাম পেঁয়াজ

আধা চা চামচ গরম মসলা

১ চা চামচ ঘি

লবণ, স্বাদমতো

টমেটোর ঝোল তৈরির উপাদান

২০০ গ্রাম টমেটো

১ চা চামচ ঘি

লবণ, স্বাদমতো

রান্না পদ্ধতি

প্রথমে একটি কড়াইতে ঘি গরম করে পেঁয়াজের ঝোল তৈরি উপাদানসমূহ একসাথে দিয়ে ভালোভাবে নাড়াচাড়া করতে হবে। নরম হয়ে গেলে এটা আলাদা করে রাখতে হবে।

এরপর আরেকটা কড়াইতে একইভাবে টমেটোর ঝোল তৈরি করতে হবে। এরপর আলু কেটে নিয়ে ভালোভাবে ভেজে নিতে হবে। ভাজার পর আলু ঠাণ্ডা করতে হবে।

আলু ঠাণ্ডা হতে হতে ভর্তা করা আলু ও পনির একসাথে করে পুর তৈরি করতে হবে। এরপর ভাজা আলু পুর দিয়ে মুড়িয়ে আলাদা করে রাখতে হবে। তারপর টমেটো ও পেঁয়াজের ঝোল একসাথে রান্না করতে হবে।

এর সাথে গরম মসলা, মরিচের গুঁড়া ও কাসুরি মেথি দিয়ে এক মিনিট রান্না করতে হবে। এর মধ্যে মাখন ও ক্রিম দিয়ে নাড়তে হবে। সবশেষে, আলু ছেড়ে ৩-৫ মিনিট রান্না করতে হবে।

ব্যস, হয়ে গেল লক্ষ্ণোর আলুর দম।

কিমা বিরিয়ানি

উপাদান

৫০০ গ্রাম চাল

১ কাপ কাজুবাদাম

কিসমিস, ৫-৬টি

১ কাপ দই

২ টেবিল চামচ ঘি

১ কাপ পেঁয়াজ

১ টেবিল চামচ রসুন বাটা

১/২ চা চামচ আদা বাটা

২ চা চামচ ধনিয়া গুঁড়া

১ টেবিল চামচ মরিচের গুঁড়া

১/২ কেজি খাসির মাংসের কিমা

১ গ্লাস দুধ

৫০ গ্রাম মাখন

১ টেবিল চামচ গোলাপ জল

পুদিনা পাতা, ৫-৬টি

১ টুকরা আদা, ফালি করে কেটে নেওয়া

গরম মসলা তৈরির উপাদান

২ চা চামচ জিরা

২ চা চামচ ধনিয়া

সবুজ এলাচ, ৩-৪টি

কালো এলাচ

দারুচিনি, ৩-৪টি

২ টেবিল চামচ মৌরি

লবঙ্গ, ৫-৬টি

পানি

লবণ

রান্না পদ্ধতি

প্রথমে চাল পরিষ্কার করে পানিতে ধুয়ে নিতে হবে। এরপর কড়াইতে জিরা, ধনিয়া, সবুজ এলাচ, দারুচিনি, মৌরি ও লবঙ্গ তেল ছাড়া ভেজে ভালোভাবে গুঁড়া করে নিতে হবে। এরপর কাজুবাদাম ও কিসমিস পানিতে ধুয়ে নিতে হবে।

কাজুবাদামের খোসা ছাড়িয়ে ছোট ছোট করে কেটে নিতে হবে। কিসমিসও কুচি কুচি করতে হবে। এরপর কড়াইতে ঘি গরম করে পেঁয়াজ দিয়ে অল্প আঁচে রান্না করতে হবে।

তারপর দই, আদা বাঁটা, রসুন বাঁটা, কালো এলাচ ও গুঁড়া মরিচ একসাথে পেঁয়াজের মধ্যে দিয়ে ২ মিনিট রান্না করতে হবে।

এরপর খাসির মাংসের কিমা, গরম মসলা ও লবণ দিয়ে কিছুক্ষণ রান্না করতে হবে। এরসাথে এক কাপ পানি দিয়ে ফুটতে দিতে হবে। পানি যখন ফুটবে তখন কিমা আলাদা একটি কড়াইতে নামিয়ে রাখতে হবে।

এরপর কড়াইতে দুধ, কাজুবাদাম ও কিসমিস দিয়ে কিছু জ্বাল দিয়ে তার মধ্যে চাল দিয়ে সেদ্ধ করতে হবে। এর সাথে গোলাপ জল ও লবণ দিয়ে নাড়তে হবে।

পানি যখন অর্ধেকে নেমে আসবে পুদিনা পাতা ও আদা যোগ করতে হবে। এরপর কিমা যোগ করে ঢাকনা দিয়ে ঢেকে রান্না করতে হবে।

রান্না হয়ে গেলে গরম গরম পরিবেশন করতে হবে।