প্রেসার কুকারে ফ্রাইড রাইস –

উপকরনঃ

– ৩ চা চামচ রসুন কুচি

– ২ চা চামচ আদা কুচি

– ১ চা চামচ মরিচ কুচি

– আধা কাপ ব্রকলি কুচি

– ১ টি সবুজ ক্যাপসিকাম কুচি

– ১ টি গাজর কুচি

– ১/৪ কাপ বরবটি কুচি

– ১ টি পেঁয়াজ কুচি বা পেঁয়াজ কলি

– ১ কাপ মুরগীর মাংস ছোটো কিউব করে কাটা

– আধা কাপ খোসা ছাড়ানো চিংড়ি মাছ

– ১ কাপ বাসমতী চাল

– ৪ টেবিল চামচ তেল

– লবণ স্বাদ মতো

* আপনি আপনার পছন্দের সবজি ও মাংস ব্যবহার করতে পারেন নিজের ইচ্ছে মতো। সময় একই লাগবে। এবং নিজের স্বাদ মতো অন্যান্য সিজনিং ব্যবহার করে স্বাদ আরও বাড়িয়ে নিতে পারেন (এই ভিডিওটিতে ভেজিটেবল ফ্রাইড রাইস দেখানো হয়েছে)।

পদ্ধতিঃ

– প্রেসার কুকার চুলায় দিয়ে গরম করে এতে তেল দিয়ে তেল গরম করে নিন। এরপর এতে রসুন-আদা কুচি দিয়ে বাদামী করে ভেজে নিন। পেঁয়াজ কুচি দিন ও নেড়ে নিন।

– এরপর যদি মাংস ও চিংড়ি দিতে চান তাহলে দিয়ে ভেজে নিন।

– তারপর গাজর দিয়ে ভেজে নিন খানিকক্ষণ। তারপর বাকি সবজি দিয়ে ভালো করে নেড়ে নিন। লবণ দিয়ে ভালো করে মিশিয়ে নিন।

– এরপর চাল ধুয়ে পানি ঝড়িয়ে প্রেসার কুকারে দিয়ে দিন। এরপর পানি দিন পরিমাণ মতো।

– প্রেসার কুকারে পানির পরিমাণ ঠিকমতো দেয়া অত্যন্ত জরুরী। আর তাই এক কাজ করুন। এমনভাবে পানি দিন যেন তা চালের উপরে আধা ইঞ্চি পরিমাণে থাকে। আপনি আঙুল ডুবিয়ে পরীক্ষা করে নিতে পারেন (ভিডিও)।

– এরপর একটু নেড়ে প্রেসার কুকারের ঢাকনা দিয়ে অল্প আঁচে রান্না করুন প্রথম হুইসেল বাজার ঠিক আগ পর্যন্ত। যখন বুঝবেন হুইসেল বাজতে যাবে তার আগেই চুলা থেকে নামিয়ে নিন।

– এরপর এভাবেই ১০ মিনিট রেখে নিন। ১০ মিনিট পর ভেতরের ষ্টীম বের করে নিন এবং ঢাকনা খুলুন।

– ব্যস, দেখুন কতো অল্প সময়েই তৈরি হয়ে গিয়েছে আপনার অত্যন্ত সুস্বাদু ‘ফ্রাইড রাইস’। যদি আরও স্বাদ বাড়াতে চান তাহলে একেবারে শেষের দিকে ডিম ভাজা, সাদা ভিনেগার ও পছন্দের সিজনিং দিয়ে একটু নেড়ে নিতে
পারেন। এরপর পরিবেশন করুন গরম গরম।

প্রেসার কুকারে আলুর দম

উপকরণ

১টি তেজপাতা

২টি দারুচিনি

১টি বড় এলাচ

১টি ছোট এলাচ

১ টেবিল চামচ জিরা

১ কাপ পেঁয়াজ কুচি

১/২ ইঞ্চি আদা কুচি

৩/৪ কোয়া রসূন কুচি

৭/৮ টি গোল মরিচ

১/২ টেবিল চামচ জিরা পাউডার

১/৪ কাপ দই ১০-১২ টি

ছোট আলু সেদ্ধ ১ চা চামচ

লাল মরিচ গুঁড়ো ১/৩ চা চামচ

হলুদ গুঁড়ো ১ টেবিল চামচ

মেথি ১ চা চামচ

ধনেপাতা কুচি

লবণ পানি তেল

পদ্ধতিঃ

প্রথমে চুলায় প্রেসার কুকার দিন। তারপর এতে তেল দিয়ে তেজপাতা, বড় এলাচ, ছোট এলাচ, দারুচিনি, গোল মরিচ, জিরা, এবং পেঁয়াজ কুচি দিয়ে নাড়ুন।

এবার এতে আদা রসুন দিয়ে দিন। তারপর কিছুক্ষণ নাড়ুন। এবং পেঁয়াজ নরম হওয়ার জন্য অপেক্ষা করুন।

পেঁয়াজ নরম হয়ে এলে এতে লবণ দিয়ে নাড়ুন।

কিছুক্ষণ পর এতে পানি দিয়ে দিন। পেঁয়াজ নরম হয়ে বাদামী রঙ হয়ে এলে প্রেসার কুকারের ঢাকনা দিয়ে দিন।

এবার ৫ থেকে ৬ টা শিসের জন্য অপেক্ষা করুন। শিস দেওয়া হয়ে গেলে, চুলা থেকে প্রেসার কুকার নামিয়ে ফেলুন।

এবার আরেকটি প্যানে তেল গরম করতে দিন। এবার সিদ্ধ করা আলুর টুকরা গুলো দিয়ে দিন। আলুতে হলুদ গুঁড়ো, মরিচ গুঁড়ো দিয়ে কিছুক্ষণ ভাজুন।

তারপর মাঝারি আঁচে চুলায় প্রেসার কুকারটি দিন। এখন ভাল করে পেঁয়াজের মিশ্রণটি গলিয়ে ফেলুন।

পেঁয়াজ নরম হয়ে গলে গেলে এতে বাদাম দুধ নাড়ুন। কাজু বাদাম এবং দুধ ব্লেন্ডারে ব্লেন্ড করে তৈরি করে নিন বাদাম দুধ। এরপর এতে হলুদ গুঁড়ো, মরিচ গুঁড়ো, ধনিয়া গুঁড়ো, জিরা গুঁড়ো দিয়ে ভাল করে মিশিয়ে নিন।

এবার এতে টক দই দিয়ে দিন। টক দই দিয়ে কিছুক্ষণ নাড়ার পর এত মেথি পাতা দিয়ে ভাল করে নাড়ুন।

তারপর এতে ভাজা আলুগুলো দিয়ে দিন।

আলু দেওয়ার পর ৫ মিনিট রান্না করুন। আপনি যদি একটু পাতলা করতে চান তবে পানি দিয়ে কিছুক্ষণ রান্না করুন। ৫ মিনিট পর চুলা থেকে নামিয়ে পরিবেশন করুন মজাদার আলুর দম।

প্রেসার কুকারে খিচুড়ি

উপকরণ:

১.৫ কাপ বাসমতী চাল

১ টেবিল চামচ মসুর ডাল

১ টেবিল চামচ ছোলার ডাল

১ টেবিল চামচ মুগ ডাল

১ টেবিল চামচ অড়হর ডাল

২ টেবিল চামচ ঘি

১ চা চামচ জিরা

১ চা চামচ আদা কুচি

১/৪ কাপ পেঁয়াজ কিউব করে কাটা

১/২ কাপ বাঁধাকপি কিউব করে কাটা

৩/৪ কাপ ফুলকপি

১/২ কাপ আলু কিউব করে কাটা

১/২ কাপ মটরশুঁটি

১ চা চামচ লাল মরিচ গুঁড়ো

১/৪ চা চামচ হলুদ গুঁড়ো

২ চামচ ধনিয়া জিরা গুঁড়ো

১/২ কাপ টমেটো কুচি

লবণ স্বাদমত

প্রণালী:

১। চাল এবং ডাল ১৫ মিনিট একটি পাত্রে পানি দিয়ে ভিজিয়ে রাখুন।

২। এবার প্রেশার কুকারে ঘি এবং জিরা দিয়ে কিছুক্ষণ নাড়ুন।

৩। এরপর এতে আদা রসুন দিয়ে মাঝারি আঁচে ১ মিনিট ভাজুন।

৪। আদা রসুন নরম হয়ে এলে পেঁয়াজ কুচি দিয়ে আবার ১ মিনিট নাড়ুন।

৫। এতে বাঁধাকপি, ফুলকপি, আলু এবং মটরশুঁটি দিয়ে মাঝারি আঁচে ২ মিনিট রান্না করুন।

৬। লাল মরিচ গুঁড়ো, হলুদ গুঁড়ো, ধনিয়া-জিরা গুঁড়ো, টমেটো কুচি, চাল, ডাল, লবণ এবং ৩ কাপ গরম পানি দিয়ে ঢাকনা দিয়ে রান্না করুন। প্রেশার কুকারে ২ বার হুইসেলের জন্য অপেক্ষা করুন।

৭। ব্যস তৈরি হয়ে গেল পাঁচমিশালী খিচুড়ি। ৬ জন মানুষের পরিবেশনযোগ্য।

প্রেসার কুকারে পুডিং

উপকরণ :

* দুধ – ১/২ লিটার

* ডিম – ৫ টা

* চিনি – ১/২ কাপ বা পরিমানমতো

* ঘি (গরুর) – ১ চা চামচ

প্রণালি

১/২ লিটার দুধ নেড়ে নেড়ে জ্বাল দিতে থাকুন, খেয়াল রাখবেন দুধে যাতে স্বর বসে না যায়। তাই ঘন ঘন নাড়তে হবে। দুধ কমে যখন প্রায় অর্ধেক হয়ে যাবে নামিয়ে ঠান্ডা করুন।

অন্য পাত্রে ৫ টা ডিম ভাল করে ফেটে নিন, এইবার এর সাথে চিনি মেশান। সবটা চিনি গলে যাবে না, তবুও যতটা সম্ভব ভাল করে মেশান। মিশ্রণটি জ্বাল দেয়া ঠান্ডা দুধে দিন, ১ চা চামচ ঘি দিন। ভাল করে ফেটে নিন, ভাল করে।

এইবার পছন্দসই একটি পাত্র (প্রেসার কুকার উপযোগী) চুলায় চাপিয়ে তাতে সামান্য চিনি দিয়ে একটু লালচে (পুড়ে) করে নিন, পুডিং যখন উপুড় করে পরিবেশন করবেন তখন দেখতে ভাল দেখাবে।

প্রেসার কুকারে পানি দিয়ে এর মধ্যে একটি স্ট্যান্ড বসিয়ে তার উপর পুডিং এর মিশ্রণ সহ ঢাকনা দিয়ে পাত্রটি দিন। ৩/৪ সিটি পর্যন্ত রান্না হতে দিন।

এই সময়ে পাত্রের ঢাকনা তুলে দেখতে পারেন পুডিং জমেছে কিনা। মিনিট বিশেক এর মত লাগবে পুডিং হতে।

প্রেসার কুকারে কেক

উপকরণ :

. বাটার ১/৪ কাপ

. চিনি ৩/৪ কাপ

. পানি ১/৪ কাপ

. ময়দা ১ কাপ

. কোকো পাউডার ১/৪ কাপ

. বেকিং পাউডার দেড় চা চামচ

. ডিম ২ টি

. লবণ স্বাদমত

. ভ্যানিলা এসেন্স ১ চা চামচ

. ছোটো বেকিং মোল্ড বা বাটি

পদ্ধতি

.প্রথমে ময়দা, কোকো পাউডার, বেকিং পাউডার, বাটার, চিনি, পানি এবং ভ্যানিলা এসেন্স একসাথে ভালো করে মিশিয়ে মসৃণ মিশ্রণ তৈরি করুন। এরসাথে ডিম মিশিয়ে দিন। ভালো করে মিশিয়ে নিন।

.তারপর বেকিং মোল্ড বা ছোটো বাটি যেটাতে কেক বেক করবেন তা বাটার দিয়ে ভালো করে গ্রিজ করে নিন। এবং কেকের মিশ্রণটি মোল্ডে ঢেলে রাখুন।

. এবার একটি প্রেসার কুকার চুলায় দিন। ঢাকনা দিয়ে ঢেকে দেবেন শুধু প্রেসার লিড বা রিবন খুলে রাখবেন। এভাবে ৩-৪ মিনিট গরম করে নিন। এরপর ছোটো বাটি বা মোল্ডটি খালি প্রেসার কুকারের ভিতরে বসিয়ে দিন।

. এবার প্রেসার লিড বা রিবন ছাড়াই ঢাকনা লাগিয়ে প্রেসার কুকার অল্প আঁচে চুলায় বসিয়ে রাখুন। পানি দেবেন না একেবারেই এবং চুলার আঁচ অল্প করে রাখবে। মনে রাখবেন মাঝারি বা বেশি আঁচ যেন না হয়। সবচেয়ে ভালো হয়ে কুকারের নিচে একটি লোহার তাওয়া বসিয়ে দিন।

. এরপর ৩০ মিনিট বা কেক হওয়া পর্যন্ত অপেক্ষা করুন। কেক হয়েছে কিনা তা দেখার জন্য ৩০ মিনিট পর একটি কাঠি ঢুকিয়ে মোল্ডের কেকটি দেখে নিন। যদি কেকের গায়ে কেকের মিশ্রন লেগে থাকে তাহলে বুঝবেন কেক এখনো হয়নি।

.এবার কেক হয়ে গেলে কুকারের ভেতরেই খানিকটা ঠাণ্ডা হতে দিন এবং এরপর নামিয়ে উপরে লিকুইড চকলেট বা চকলেট কুচি ছিটিয়ে বা নিজের পছন্দমতো সাজিয়ে পরিবেশন করুন।