প্রয়োজনীয় উপকরণ

মুরগির মাংসের কিমা (২ কাপ)

ময়দা (কোয়ার্টার কাপ)

কর্নফ্লাওয়ার (কোয়ার্টার কাপ)

রসুন বাটা (১ চা চামচ)

আদা বাটা (আধা চা চামচ)

টমেটো সস (২ টেবিল চামচ)

সয়া সস (১ টেবিল চামচ)

ফিশ সস (২ টেবিল চামচ)

পুদিনা পাতা (১০-১২টি)

কাঁচা মরিচ (৩-৪টি)

শুকনো মরিচ (৩-৪টি)

গোল মরিচের গুঁড়া (আধা চা চামচ)

প্রস্তুত প্রণালী

প্রথমেই একটি মিক্সিং জারে ২ কাপ পরিমাণ মুরগির মাংসের কিমা নিয়ে নিতে হবে। এরপর এই জরে একটি একটি করে প্রয়োজনীয় উপকরণ দিয়ে দিতে হবে।

রসুন বাটা ১ চা চামচ পরিমাণ, আধা চা চামচ পরিমাণ আদা বাটা, সয়া সস ১ টেবিল চামচ পরিমাণ, ফিশ সস ২ টেবিল চামচ পরিমাণ ও ১০-১২টি পুদিনা পাতা কুচি কুচি করে কেটে দিতে হবে।

পুদিনা পাতা কুচি কুচি করে কেটে দেয়ার কারণ হচ্ছে, অনেক সময় আঁশযুক্ত উপকরণগুলো ভালো করে ব্লেন্ড করার পরও গোটা গোটা থেকে যায়।

তাই পুদিনা পাতা একটু ছোট ছোট কুচি করে কেটে নিতে হবে। এরপর উক্ত জারে একটি আস্ত ডিম পুরোটাই ভালো করে গুলিয়ে দিয়ে দিতে হবে। তারপর ২ টেবিল চামচ পরিমাণ টমেটো সস দিয়ে দিতে হবে।

৩-৪টি কাঁচা মরিচ ভালো করে কুচি করে কেটে দিতে হবে, যেন ব্লেন্ড করার সময় মিশে যায়। আস্ত কাঁচা মরিচ দিলে গোটা গোটা থেকে যেতে পারে, তাই কুচি কুচি করে কেটে দিতে হবে।

এবার ৩-৪টি শুকনো মরিচ একইভাবে কুচি কুচি করে কেটে দিতে হবে। আধা চা চামচ পরিমাণ গোল মরিচের গুঁড়া দিয়ে দিতে হবে।

এই সবগুলো উপকরণ যারে দেয়া হয়ে গেলে খুব ভালো করে ব্লেন্ড করে নিতে হবে। ব্লেন্ড করার পর সম্পূর্ণ মিশ্রণটি একটি বাটিতে তুলে নিতে হবে।

খেয়াল রাখতে হবে, যেন মাংসের মিশ্রণটিতে কোন প্রকার আঁশ না থাকে। যদি কোন প্রকার আঁশ থাকে, তাহলে রেসিপিটি ভালো হবে না।

এবার কোয়ার্টার কাপ কর্নফ্লাওয়ার এবং কোয়ার্টার কাপ ময়দা কিমার সাথে খুব ভালো করে ভর্তার মতো হাত দিয়ে মেখে মিশিয়ে নিতে হবে।

একটা বিষয় অবশ্যই খেয়াল রাখবেন, সবগুলো উপকরণ একসাথে দেয়া যাবে না। প্রতিটি উপকরণ ধাপে ধাপে মেশাতে হবে। তাহলে রেসিপিটি খেতে খুবই মজা হবে।

কর্নফ্লাওয়ার এবং ময়দা মেশানোর পর দেখা যাবে ডো একটু নরম হয়ে গেছে। মিশ্রণটি এরকম নরম অবস্থাতেই থাকবে। এটাকে শক্ত করার জন্য আপনারা আবার ভুল করে কোনোপ্রকার অতিরিক্ত ময়দা বা কর্নফ্লাওয়ার মেশাবেন না।

এপর্যায়ে একটি প্লাস্টিক র‌্যাপিং পেপার সাহায্যে বাটি ঢেকে দিয়ে ফ্রিজের নরমাল অংশে এক ঘণ্টা ধরে রেখে দিতে হবে ডোটি মেরিনেট হওয়ার জন্য।

এক ঘণ্টা পর ফ্রিজের ভেতর থেকে কিমার বাটিটি বের করে নিয়ে র‌্যাপিং পেপারটি খুলে নিতে হবে। এবার একটি ফয়েল পেপার টেবিলের ওপর বিছিয়ে নিয়ে কিমার মিশ্রণটি একটি ছোট চামচ দিয়ে একটু একটু করে নিয়ে বিছিয়ে দিতে হবে।

একবারে ঢেলে দেওয়া যাবে না, একটু একটু করে চামচ দিয়ে নিতে হবে। চামচ দিয়ে করতে হবে, হাত দিয়ে করতে গেলে হাতে ডো লেগে যাবে।

চামচ দিয়ে সম্পূর্ণ মিশ্রণটি চেপে চেপে একসাথে রাখতে হবে। এমনটা করার মূল উদ্দেশ্যই হলো কিমার অংশের ভেতরে থাকা বাতাস বা বাবলটা বের করে নেয়া।

এই ডোটি ফয়েল পেপারের ওপর একটু লম্বা শেপে বিছিয়ে নিতে হবে।

এরপর ফয়েল পেপারের সাহায্যে ডোটিকে ভাঁজ করে নিতে হবে। এই ফয়েল পেপারের সাহায্যে আমরা মাংসের কিমার ডোটিকে লম্বা রোলের মতো করে ভাজ করবো।

ফয়েল পেপার একটু চেপে চেপে ভাজ করতে হবে, যেন ভেতরে কোন প্রকার বাতাস না থাকে। এভাবে করলে ডোয়ের শেপ খুবই সুন্দর আসবে।

রোলের শেপ হয়ে গেলে দু’পাশ থেকে ফয়েল পেপার পেঁচিয়ে পেঁচিয়ে দুপাশের মুখ বন্ধ করে দিতে হবে।

এরকম করার কারণ- ভেতরে যেন কোনোপ্রকার পানি প্রবেশ করতে না পারে। এবার ফয়েল পেপারসহ কিমা একটি ফুটন্ত গরম পানির পাত্রে ছেড়ে দিয়ে ঢেকে দিতে হবে।

দশ মিনিট ধরে চুলার ওপর রেখে এভাবেই ফুটন্ত গরম পানিতে জ্বাল দিতে হবে। এই ১০ মিনিটের মধ্যে কোনভাবেই পাত্রের ঢাকনা খোলা যাবে না।

১০ মিনিট পর একটি হাতার সাহায্যে মাংসের কিমা রোলটি একটু উল্টিয়ে দিতে হবে, যেন ওপরের অংশ নিচে এবং নিচের অংশ ওপরে চলে আসে। এরপর আবারো ১০ মিনিট জ্বাল দিতে হবে।

১০ মিনিট হয়ে গেলে চুলা বন্ধ করে ঢাকনা খুলে দিতে হবে। এরপর একটি হাতার সাহায্যে গরম পানির পাত্র থেকে কিমার রোলটি উঠিয়ে নিতে হবে। দেখা যাবে ফয়েল পেপারের ভেতরে রাখা কিমা টানটান হয়ে খুব ভালোভাবে সেদ্ধ হয়ে গেছে।

এরপর ফয়েল পেপার না খুলে সাধারণ তাপমাত্রায় আসা পর্যন্ত অপেক্ষা করতে হবে। সাধারণ তাপমাত্রায় চলে আসলে আস্তে আস্তে ফয়েল পেপারের প্যাঁচ খুলে ভেতর থেকে মাংসের কিমা আলাদা করতে হবে।

ফয়েল পেপারের ভেতরে থাকা মাংসের কিমার রোলটি দেখা যাবে খুবই সুন্দর এবং নরম হয়ে সেদ্ধ হয়ে গেছে। সম্পূর্ণ রোলটি একটি প্যানে করে কিছুটা ভেজে নিতে হবে।

একটি প্যানে কিছুটা রান্নার তেল নিয়ে চুলার জ্বাল মাঝারি আঁচে রেখে আস্তে আস্তে রোলটিকে ঘুরিয়ে ঘুরিয়ে ভেঁজে নিতে হবে, যেন রোলের চারিদিকে সুন্দর একটি গোল্ডেন কালার আসে।

হালকা হালকা ঘুরিয়ে ঘুরিয়ে ভাজতে হবে, যেন রোলের সব অংশ সমানভাবে ভাজা হয়। এভাবে ভাজা হয়ে গেলে একটি চামচের সাহায্যে আবারো এটিকে তুলে নিতে হবে। সাধারণ তাপমাত্রায় আসা পর্যন্ত অপেক্ষা করতে হবে।

সাধারণ তাপমাত্রায় আসার পর একটি ধারালো চাকুর সাহায্যে রোল থেকে এবার গোল গোল করে চাকার মতো কেটে নিতে হবে।

আমি যে পরিমাণ উপকরণ নিয়েছি তাতে ১০ থেকে ১২টি ললি তৈরি হবে। এরপর একটি প্যানে পরিমাণমতো তেল নিয়ে ললিগুলো ভাঁজতে হবে। প্যানে এমন পরিমাণ তেল নিতে হবে, যেন ললিগুলো সম্পূর্ণ ডুবে না যায়।

চুলার জ্বাল মাঝারি আঁচে রেখে ললিগুলো ভাঁজতে হবে। খেয়াল রাখতে হবে, যেন পুড়ে না যায়। একপাশ হয়ে গেলে চামচের সাহায্যে উল্টিয়ে দিতে হবে।

খুব বেশি ভাজার দরকার নেই, কেননা ইতোমধ্যেই এটি খুব ভালোভাবে সেদ্ধ করা হয়েছে। ভাজতে ভাজতে যখন সুন্দর একটি রং ধারণ করবে, তখন কিমাগুলো উঠিয়ে নিতে হবে।

একটি ছাঁকনি দিয়ে উঠাতে হবে যেন তেলগুলো ঝরে যায়। এবার ললি তৈরি করার জন্য কতগুলো কাঠি ভেজে নেয়া কিমাগুলোর গায়ে ঢুকিয়ে দিতে হবে শুধুমাত্র ললির শেপ আনার জন্য।

এরপর একটি পাত্রে সস দিয়ে পরিবেশন করুন সিপি স্টাইলে সুস্বাদু চিকেন ললিপপ।

 

 

সূত্র: Food Tips