কমলাভোগ

যা লাগবে : ছানা ১ কাপ, কমলার রস আধা কাপ, গ্রেড করা কমলার খোসা আধা চা চামচ। চিনি ১ কাপ, পানি ২ কাপ।

যেভাবে করবেন : ছানা গ্রেড করা কমলার খোসা দিয়ে ভালো করে মথতে হবে। তারপর ছোট ছোট বল করে নিন। চিনি ও পানি দিয়ে সিরা করে নিন। তারপর সেই সিরাতে ছোট ছোট বলগুলো ছেড়ে দিন। ঢাকনা বন্ধ করে ১০ মিনিট জ্বাল দিন। ঢাকনা খুলে আরও ১০ মিনিট জ্বাল দিন। তারপর চুলা বন্ধ করে দিন। এবার সিরায় মিষ্টি কমলার জুস দিয়ে ২-৩ ঘণ্টা ঢেকে রাখুন।

রসগোল্লা

যা লাগবে : দুধ ১ লিটার, টক দই ১ কাপ, ময়দা আধা চা চামচ, সুজি আধা চা চামচ, চিনি ১ চা চামচ। চিনি দেড় কাপ, পানি ৪ কাপ, এলাচি ৪-৫টি।

যেভাবে করবেন : দুধ হাঁড়িতে নিয়ে ফুটান। জ্বাল উঠে এলে ১ কাপ টক দই ঢেলে দিন। দুধ জমে এলে চুলা বন্ধ করে কিছুক্ষণ ঢেকে রাখুন। একটা পাতলা কাপড়ে ছানা ঢেলে পানি ঝরিয়ে কাপড়টা বেঁধে ঝুলিয়ে রাখুন ১ ঘণ্টা। এবার ছানা হাতের তালু দিয়ে ময়ান দিন। কিছুটা ময়ান দিয়ে এবার তাতে ময়দা, সুজি ও চিনি দিয়ে কিছুক্ষণ মথে নিন। একটি হাঁড়িতে চিনি, পানি ও এলাচি দিয়ে সিরা করে নিন। এবার ছানা দিয়ে ছোট ছোট বল করে সিরাতে ছেড়ে দিন। ঢাকনা দিয়ে ৮ মিনিট মিষ্টি জ্বাল দিন। এবার ঢাকনা খুলে জ্বাল দিন আরও ১০/১২ মিনিট। সিরা ঘন হয়ে গেলে কিছু গরম পানি মিশিয়ে দিন। তারপর চুলা বন্ধ করে সিরাতে রেখে দিন। ঢাকনা বন্ধ করে ৬-৭ ঘণ্টা রেখে দিন সিরাতেই। তারপরে পরিবেশন করুন।

রসকদম

যা লাগবে : লিকুইড দুধ ১ লিটার, সাদা সিরকা ২ টেবিল চামচ, ছানা ১ কাপ, চিনি ১/২ কাপ, মাওয়া ১/২ কাপ, ছোট মিষ্টি বা মিষ্টির টুকরা যতগুলো মিষ্টি হবে, চিনি (ঘন সিরার জন্য) আন্দাজমতো, চিনির দানা আন্দাজমতো।

যেভাবে করবেন : প্রথমে দুধ জ্বাল দিতে হবে। দুধ ফুটে উঠলে সিরকার সঙ্গে সমান পরিমাণে পানি মিশিয়ে ঢেলে নাড়া দিতে হবে। জমে গেলে ছেঁকে ধুয়ে নিতে হবে। কাপড়ে বেঁধে ঝুলিয়ে রাখতে হবে, যেন সব পানি পড়ে যায়। এবার ছানার সঙ্গে চিনি মিশিয়ে জ্বাল দিন। পানি শুকালে মাওয়া গুঁড়া দিয়ে কম আঁচে জ্বাল দিন। আঠালো হলে নামিয়ে নিন। হাত দিয়ে মেখে বল বানিয়ে তার ভেতর মিষ্টি ঢুকিয়ে গোল করে ঘন সিরা মিষ্টিতে লাগিয়ে গোল দানার ওপর গড়িয়ে নিতে হবে। কাগজের লাইনারের ওপর রেখে পরিবেশন করুন। মাওয়া না পেলে ১/২ কাপ গুঁড়াদুধে ১/৪ কাপ ময়দা, ১ চা চামচ ঘি, অল্প দুধ দিয়ে মাখিয়ে ফ্রিজে ১ ঘণ্টা রেখে ব্যবহার করতে পারেন।

ছানার কালোজাম

যা লাগবে : ছানা ১ কাপ (১ কেজি দুধের), ময়দা ১/৪ কাপ, মাওয়া ১/২ কাপ, গুঁড়া চিনি ১ টেবিল চামচ, ঘি ১ টেবিল চামচ, পানি ৪ কাপ, চিনি ৪ কাপ, বেকিং পাউডার ১ চিমটি, গোলাপি রং খুব সামান্য (না দিলেও চলবে), তেল ডুবো তেলে ভাজার জন্য যতটুকু লাগে। গোলাপ জল ১/২ চা চামচ।

যেভাবে করবেন : ৪ কাপ পানিতে ৪ কাপ চিনি দিয়ে জ্বাল দিন, গোলাপ জল দিন, চিনি আর পানি মিশে গেলে চুলা বন্ধ করে রাখুন। একটি ছড়ানো পাত্রে বা প্লেটে ময়দায় বেকিং পাউডার দিয়ে মিশিয়ে ঘি দিয়ে মাখান। এবার গুঁড়া চিনি দিয়ে মাখিয়ে রেখে দিন। পানি ঝরিয়ে নেয়া ছানা হাতের তালু দিয়ে ঘষে ঘষে ছেনে নিন। এবার ময়ান দেয়া ময়দা ও মাওয়া দিয়ে ছানা ভালো করে মেখে (রং ব্যবহার করলে একটু গোলাপজলে মিশিয়ে ছানায় মাখিয়ে নেবেন) ১০টার মতো ভাগ করে, হাতে সামান্য ঘি মেখে কালোজামের আকারে ছানাগুলো মসৃণ করে তৈরি করুন। ফ্রাইপ্যানে ডুবো তেল দিয়ে বসান একদম অল্প জ্বালে। ফ্রাইপ্যান চুলায় বসিয়েই মিষ্টিগুলো ছেড়ে দিন ও গাঢ় বাদামি করে ঘুরিয়ে ঘুরিয়ে ভাজতে হবে। সিরা যেন বেশি ঘন না হয়। ভাজা মিষ্টিগুলো ঝাঁজরি টাইপ চামচে উঠিয়ে বলক ওঠা সিরায় দিন। ৫ মিনিট জোরে বলক আসা জ্বালে থাকবে, আর পরের ৫ মিনিট অল্প আঁচে রাখবে। সিরা ঘন হয়ে গেলে আধা কাপ বা প্রয়োজনে ১ কাপ গরম পানি দিতে পারেন। হয়ে গেলে নামিয়ে পাতিল ঠাণ্ডা করুন। এক-দুই ঘণ্টা পর পরিবেশন করুন।

নারিকেলের লাড্ডু

যা লাগবে : নারিকেল কোরানো ২ কাপ, চিনি ১ কাপ, গুঁড়া দুধ আধা কাপ, এলাচি গুঁড়া ১/২ চা চামচ, কালার লাল, সবুজ, কমলা, হলুদ (নাও দিতে পারেন), ঘি ১ টেবিল চামচ, তবক ৬টি পাতা (ইচ্ছা সাজানোর জন্য)।

যেভাবে করবেন : সব উপকরণ একসঙ্গে মিশিয়ে নিন। এরপর মিশ্রণ ৩ ভাগ করে ৩টি কালার মিশিয়ে নিন। একভাগ নিয়ে চুলায় জ্বাল দিন। আঠালো হয়ে এলে নামিয়ে নিন। কিছুটা গরম থাকতেই হাত দিয়ে বল করে তবক লাগিয়ে নিন। এভাবে বাকি ২ ভাগ আলাদা করে জ্বাল দিয়ে বল তৈরি করতে হবে। এবার তবক লাগিয়ে নিন। এখন পরিবেশন করুন।

দানাদার মিষ্টি

যা লাগবে : ছানা ১ কাপ, ময়দা আধা চা চামচ, সুজি আধা চা চামচ, চিনি ২ চা চামচ। চিনি দেড় কাপ, পানি সাড়ে তিন কাপ।

যেভাবে করবেন : ছানা, ময়দা, সুজি ও চিনি ভালো করে মথে নিন। চিনি ও পানি দিয়ে সিরা করে নিন। ছোট ছোট মিষ্টি তৈরি করে গরম সিরাতে দিয়ে ঢেকে জ্বাল দিন ১০ মিনিট। মিষ্টি ফুলে ডবল হয়ে যাবে ১০ মিনিট পর। এবার ঢাকনা খুলে আরও কিছুক্ষণ জ্বাল দিন, চিনির সিরা ঘন হয়ে এলে নামিয়ে ফেলুন। খেয়াল রাখতে হবে যেন পুড়ে কালার না হয়ে যায়। কিছুটা ঠাণ্ডা হলেই চিনিতে গড়িয়ে পরিবেশন করুন।

ছানার পোলাও

যা লাগবে : ছানা দেড় কাপ, চালের গুঁড়া (বাসমতি বা গবিন্দ্রভোগ) আধা কাপ (ভিজিয়ে গুঁড়া করা), ঘি ২/৩ টেবিল চামচ, তেল ভাজার জন্য পরিমাণমতো, সিরার জন্য চিনি ২ কাপ, পানি ২ কাপ, তেজপাতা ২/৩টি, দারুচিনি ২/৩ টুকরা।

যেভাবে করবেন : ছানার সঙ্গে চালের গুঁড়া মিশিয়ে ভালো করে হাতের তালু দিয়ে মথতে হবে। একদম মসৃণ হয়ে গেলে একটা বাটিতে কাপড় দিয়ে ঢেকে রাখতে হবে। ২ কাপ পানিতে ২ কাপ চিনি নিয়ে তেজপাতা ও দারুচিনি দিয়ে সিরা করে রাখুন। অল্প ছানার মিশ্রণ আলাদা করে রাখুন ছোট মিষ্টি করার জন্য। হাঁড়িতে তেল গরম করে তাতে একটা স্টিলের চালনি রেখে বুন্দিয়ার ঝাঁজরি বা গ্রেটারে গ্রেট করে গরম তেলে ছাড়তে হবে। ছানার পোলাও কালার আসার আগেই চালনি উঠিয়ে নিন। এবার গরম সিরায় ঢেলে দিন। সব ভাজা হলে সিরাতে ঘি দিয়ে ১ ঘণ্টা রেখে দিন। এবার আলাদা করে রাখা ছানা দিয়ে ছোট ছোট বল তৈরি করে তেলে বাদামি করে ভেজে সিরাতে ছেড়ে দিন। ছানার পোলাও উঠিয়ে ওপরে ছোট মিষ্টি দিয়ে পরিবেশন করুন।

সূত্র: যুগান্তর