মজার রান্না ডেস্ক: আমাদের দৈনন্দিন জীবনের ফ্রিজ একটি অতি গুরুত্বপূর্ণ জিনিস। ফ্রিজ ছাড়া এই আধুনিক জীবনে একদিনও চলা অসম্ভব। কিন্তু ফ্রিজে শুধু নানান রকমের খাদ্য, শাক সবজি, মাছ-মাংস সংরক্ষণ করলেই তো হবে না, তা সংরক্ষণ করতে হবে সঠিক উপায়ে।

১। বাজার করার পর যে সকল জিনিস ফ্রিজে রাখবেন সেগুলো আগে আলাদা ভাবে গুছিয়ে নিন। তারপর রাখুন।

২। ফ্রিজ কখনোই বারবার খোলা ও বন্ধ করা ঠিক না। বাসায় বাচ্চা থাকলে ফ্রিজ লক করে রাখুন।

৩। সপ্তাহে একদিন অবশ্যই ফ্রিজের ভিতরে সমস্ত জিনিসপত্র বের করে ফ্রিজ বন্ধ করুন, তারপর ফ্রিজ পরিষ্কার করুন।

৪। কাঁচা বাজার আসার পর মাছ-মাংস, সবজি ভালোভাবে ধুয়ে পরিষ্কার করুন তারপর প্রতিদিন রান্নার হিসাব অনুযায়ী গুছিয়ে রাখুন। এঁটে ঝামেলা অনেক কমে যাবে।

৫। যে দ্রব্যগুলো আগে ব্যবহার করবেন, তা ফ্রিজের নরমাল অপশনে রাখুন। এবং পরে যেগুলো ব্যবহার করবেন সেগুলো ডিপে রাখুন। সব দ্রব্য ডিপে রাখার প্রয়োজন নেই।

৬। ফ্রিজে আমরা কাঁচা মরিচ অনেক দিন সংরক্ষন করে রাখি। এবং অনেকদিন থাকার ফলে কাঁচামরিচ নষ্টও হয়ে যায়, তাই কাঁচামরিচ আনার পর বোটা ছাড়িয়ে একটি পরিষ্কার শুকনা কাপড় দিয়ে মুছে কাচের কোন পাত্রে সংরক্ষন করুন। অনেকদিন ফ্রেশ থাকবে।

৭। ধনে পাতাও আমরা প্রায় সময়ই বেশি করে এনে রাখি। বিশেষ করে মাছের কোন রান্নায় ব্যবহার করি আমরা ধনে পাতা। তাই ধনে পাতাকেও যাতে আপনি বেশিদিন সংরক্ষণ করতে পারেন তার জন্য ধনে পাতা আনার পর গোড়া কেটে বক্স করে ফ্রিজে রাখুন ভালো থাকবে।

৮। বিশেষ করে গরমের সময় আমরা বোতলে করে ফ্রিজে ঠাণ্ডা পানি রাখি। এই ঠাণ্ডা পানির বোতলগুলো ব্যবহার করার পর উপরের দিকটা না ধুয়েই আমরা আবার তা ভরে ফ্রিজে রাখি। এতে করে আপনার ফ্রিজে জীবাণুর আক্রমন হতে পারে। তাই বোতলের বাইরের দিকটা সবসময় ধুয়ে তারপর রাখুন।

৯। ডিম আমাদের প্রতিদিনের জনপ্রিয় খাবার। একসাথে অনেক ডিম এনে তা ফ্রিজে রাখি। কিন্তু আমরা অনেকেই ডিম সরাসরি ফ্রিজে রাখার আগে পরিষ্কার করিনা। কিন্তু ডিমের উপরের অংশে থাকে অনেক ময়লা, যা থেকে ফ্রিজে অন্য খাদ্য দ্রব্যে ব্যাকটেরিয়ার আক্রমন হওয়ার সম্ভবনা থাকে। তাই ডিম আনার পর তা কিছুক্ষণ খুব হালকা গরম পানিতে ভিজিয়ে রাখুন তারপর ধুয়ে পানি ঝড়িয়ে ফ্রিজে রাখুন।

১০। ফ্রিজে যেকোন খাবার রাখুন না কেন সবসময় ডেকে রাখুন কিংবা বক্সে করে রাখুন খাবার ফ্রেশ থাকবে।